নতুন অনাস্থার মুখে থেরেসা মে

24

ব্রেক্সিট নিয়ে ব্যর্থতায় নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। চলতি সপ্তাহেই হাউস অব কমন্সের মাধ্যমে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে আসার বিলটি নবায়ন করতে হবে। কিন্তু কনজারভেটিভ পার্টির ৪০ জন এমপি তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রকাশ করতে পারেন বলে জানা গেছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট এর এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা যায়।
প্রতিবেদনে বলা হয়, থেরেসা মে’র রাজনৈতিক দক্ষতা দিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন তারই দলের নেতারা। টরি এমপিরা তার বিপক্ষে গিয়ে লেবার নেতা জেরেমি করবিনকে সমর্থন দেওয়ার হুমকি দিয়েছে তারা।
লেবার পার্টিসহ অন্যান্য বিরোধী দলগুলো জানায়, ব্রেক্সিট নবায়নের জন্য পর্যাপ্ত সমর্থন নেই থেরেসা মে’র। তার উপর আস্থা নেই জানিয়ে চিঠিও লিখতে চেয়েছেন ৪০ জন এমপি। স¤প্রতি প্রকাশিত একটি নোটে এই তথ্য জানা যায়। সেখানে আরও বলা হয়, ইইউ ব্রেক্সিট নিয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সোমবার থেরেসা মে’কে চিঠি লিখেছেন লেবার পার্টির ব্রেক্সিট বিষয়ক ছায়ামন্ত্রী স্যার কির স্টার্মার। সেখানে তিনি বলেন, ব্রেক্সিট নিয়ে প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য থেরেসা মে’র এখন নিজ দলেই পর্যাপ্ত প্রভাব নেই। গত জুনে আগাম নির্বাচনে পার্লামেন্টে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায় থেরেসা মে’র কনজারভেটিভ পার্টি। এরপর থেকেই দলের কর্তৃত্ব নিয়ে চাপের মুখে তিনি। কেরমারের ওই চিঠিতে বলা হয়, ‘বিগত কয়েক সপ্তাহে এটা স্পষ্ট হয়ে গেছে যে ইউরোপের সঙ্গে চুক্তি করে আমাদের অর্থনীতি ও কর্মংসংস্থানের রক্ষা করা এখস আপনার পক্ষে সম্ভব নয়। ওই চিঠিতে জাতীয় স্বার্থে সরকারকে লেবার পার্টির সঙ্গে কাজ করার আহŸান জানানো হয়। চলতি মাসে থেরেসা মে তার দুই মন্ত্রীকে হারিয়েছেন। যৌন কেলেঙ্কারি ফাঁস হওয়া প্রতিরক্ষামন্ত্রী মাইকেল ফ্যালন পদত্যাগে বাধ্য হয়েছেন। এর রেশ না কাটতেই ব্রিটিশ জনগণের করের অর্থ দেওয়ার বিষয়ে ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনার অভিযোগ ওঠে ত্রাণমন্ত্রী প্রীতি প্যাটেলের বিরুদ্ধে। চলতি সপ্তাহে চাপের মুখে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছেন তিনিও।