টোকেন-টিকিট নিয়ে

ধোঁয়াশা চরম ভোগান্তিতে সৌদি প্রবাসীরা

17

কখন কীভাবে টোকেন-টিকিট দেওয়া হবে, এসবের সঠিক তথ্য জানা নেই সৌদি প্রবাসীদের। টোকেনের আশায় কেউ কেউ তিন-চার দিন ধরে রাজধানীর সৌদি এয়ারলাইন্সের অফিসের বাইরে রাত-দিন কাটিয়ে দিচ্ছেন। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন সৌদি প্রবাসীরা।
যদিও শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সৌদি এয়ারলাইন্স ঘোষণা দিয়েছিল আগামী ৪ অক্টোবরের আগে নতুন কোনো টোকেন দেওয়া হবে না। ফ্লাইট বাতিলের তারিখ ধরে ৪ অক্টোবর পরবর্তী টোকেন দেওয়া হবে বলেও জানায় সংস্থাটি। একই নিয়মে ফ্লাইট বাতিলের তারিখ ধরে পর্যায়ক্রমে সৌদি আরবের টিকিট রি-ইস্যু করছে এয়ারলাইন্সটি।
তবে প্রবাসীরা বলছেন, প্রবাসীদের অনেকেই এ বিষয়টি নিয়ে অন্ধকারে রয়েছেন। এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ যদি সুনির্দিষ্টভাবে তারিখ ধরে বাতিল হওয়া ফ্লাইটের টোকেন কোন তারিখে, কবে দেওয়া হবে, এটা পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিতো তাহলে এতো কাউকে ভোগান্তিতে পড়তে হতো না। এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ শুধু ঘোষণা দিয়েছে ৪ অক্টোবর নতুন টোকেন দেওয়া হবে, কিন্তু সুনির্দিষ্টভাবে বাতিল হওয়া ফ্লাইটের কোন তারিখ থেকে কত তারিখ দেওয়া হবে, তা জানায়নি। ফলে প্রবাসীদের এ ভোগান্তি। খবর বাংলানিউজের
সোমবারও (২৭ সেপ্টেম্বর) সৌদি এয়ারলাইন্সের টিকিটের জন্য টোকেনের আশায় হোটেল সোনারগাঁওয়ের গেটে অপেক্ষা করছেন কয়েক শতাধিক প্রবাসী। চাওয়া শুধু একটাই সৌদি এয়ারলাইন্সের টিকিটের টোকেন। কিন্তু তারা জানেন না, কবে ধরা দেবে সেই টোকেন।
কিশোরগঞ্জের বাসিন্দা প্রবাসী রহমত আলী বলছেন, ‘তারা (এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ) যদি আমাদের সঠিক তথ্য জানিয়ে দিতো, তাহলে প্রবাসীরা এখানে এসে ভিড় করতেন না। সীমাহীন কষ্টও হতো না। খেয়ে, না খেয়ে আমরা এখানে রাতদিন কাটাচ্ছি। কিন্তু টোকেন নিয়ে আমরা অন্ধকারে রয়েছি।
বগুড়ার বাসিন্দা প্রবাসী নান্নু মিয়াও একই কথা বলছেন। তিনি বলেন, টোকেন নিয়ে আমাদের পুরো অন্ধকারে রেখেছে সৌদি এয়ারলাইন্স। তারা যদি সঠিক তথ্য জানিয়ে দিতো, তাহলে আমাদের এখানে আগে এসে এতো কষ্ট করতে হতো না।
টোকেনের আশায় সুনামগঞ্জ থেকে আগত জিয়াদ হাসান বলেন, আমার ভিসার মেয়াদ শেষ হবে ৪ অক্টোবর, অথচ ৪ অক্টোবরই নতুন টোকেন দেবে সৌদি এয়ারলাইন্স। ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত কোনো টোকেন দিচ্ছে না তারা। যদি এ সময়ে এয়ারলাইন্স টোকেন দিতো, তাহলে ভিসার মেয়াদ নবায়নে কোনো ঝামেলায় পড়তে হতো না আমাকে।
খুলনার বাসিন্দা প্রবাসী শাহেল মিয়া বলেন, ৪ অক্টোবর তারা নতুন টোকেন দেবে, এটা আমাদের জানায়নি তারা। টোকেন কাদের দেওয়া হবে সেটাও পরিষ্কার করে সবাইকে জানাতে হবে।
এ প্রবাসীদের মতো সঠিক তথ্যের অভাবে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত প্রবাসীরা সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েছেন। টোকেন-টিকিট নিয়ে একরকম অনিশ্চয়তায় রয়েছেন এ প্রবাসী বাংলাদেশিরা। এনিয়ে সৌদি এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা কেউ কোনো কিছু বলতে পারছেন না।
সরকারের কূটনৈতিক তৎপরতায় সম্প্রতি বাংলাদেশিদের জন্য ইকামার মেয়াদ ২৪ দিন বাড়ায় সৌদি সরকার। যাদের ভিসার মেয়াদ ৩০ সেপ্টেম্বর শেষ হবে, তাদের ভিসার মেয়াদ পরবর্তী ২৪ দিন বাড়ানো হয়েছে। এর আগে সৌদি সরকার সব বিদেশি কর্মীদের ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ফেরার বাধ্যবাধকতা দেয়। এরপরই টিকিটের জন্য সংকট তৈরি হয়। সীমিত পরিসরে ফ্লাইট চালু হওয়ায় এ সংকট দেখা দেয়। কিন্তু ২৪ দিন ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর পরও দেশে আটকে পড়া প্রবাসীদের সৌদি ফেরা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে।