রোয়াংছড়ি অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের খাদ্য সহায়তা

দুর্যোগময় মুহ‚র্তে সেনাবাহিনী সর্বদা জনগণের পাশে থাকবে

বান্দরবান প্রতিনিধি

7

বান্দরবানের রোয়াংছড়ি বাজারে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদেরকে খাদ্য ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছে বান্দরবান সেনা রিজিয়ন। গত রবিবার বান্দরবান সেনা রিজিয়ন কমান্ডার ক্ষতিগ্রস্তদের সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত পূর্বক এসকল সহায়তা প্রদান করেন। এসময় বান্দরবান সেনা জোন কমান্ডারসহ অন্যান্য সেনা কর্মকর্তা ও সেনা সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন। সহায়তা প্রদানের সময় বান্দরবান সেনা রিজিয়ন কমান্ডার জানান, আপনাদের এ পরিস্থিতিতে আমি সমবেদনা জানাচ্ছি, একটি পরিকল্পিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে গেলে তা নতুন করে সাজানো অনেক কষ্টের হয়ে থাকে, আপনারা মনোবল হারাবেন না, ঘুুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করুন, যে কোন দূর্যোগময় পরিস্থিতিতে পার্বত্য এলাকায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সর্বদা আপনাদের পাশে রয়েছে এবং ভবিষৎতেও থাকবে। পরবর্তীতে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে সর্বসাধারণের এরুপ ক্ষয়ক্ষতিতে আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করেন। এর আগে গত শনিবার সেনা রিজিয়নের নির্দেশনায় তাৎক্ষণিক দ্রুত সময়ের মধ্যে আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিয়েছিলেন বান্দরবান সেনা জোন। এদিকে গত শনিবার মধ্য রাতের দিকে বান্দরবানের জেলার রোয়াংছড়ি বাজারে আগুনের সুত্রপাত ঘটে। সর্বসাধারণের সহায়তায় তৎক্ষণাৎ ছুটে আসে রোয়াংছড়ি সেনা ক্যাম্পের সেনা সদস্যরা। এসময় জ্বলন্ত আগুনের মাঝে আগুন নেভানো এবং জিনিসপত্র অক্ষত রাখার চেষ্টা করেছে সেনাবাহিনী। তারা নিজের জীবন বাজী রেখে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে স্থানীয় জনসাধারণকে সাথে নিয়ে কেউ আগুন নিভানোর কাজে কেউ দোকান এবং বাড়িতে থাকা জিনিসপত্র নিরাপদ রাখতে কাজ করেন। আর এই অক্লান্ত পরিশ্রমটি চলে মধ্য রাত হতে ভোর পর্যন্ত। মূলত ভীত জনপদের প্রাণ সন্চার করে সেনাবাহিনী ও সকলকে নিয়ে সম্মেলিতভাবে আগুন নির্বাপণে সহায়তা করে। সূত্রে জানা যায়, মধ্য রাতে বাজারে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। পরে আগুন দ্রুত চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এ অগ্নিকাÐে ১৭টি বাড়ি, ৮টি মুদিখানার দোকানসহ বাড়ি, ২৫টি মুদিখানার দোকান, ৪টি কাপড়ের দোকান, ৪টি টিভি ইলেকট্রিক মেরামতের দোকান, ৩টি ফার্মেসির দোকান, ১টি ফার্নিচার স্টোর, ১টি জুতার দোকান এবং ১টি জুয়েলারি দোকান পুড়েশেষ হয়ে যায়।
আগুন লাগার খবর পেয়ে রোয়াংছড়ি ও বান্দরবান সদরের ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিটসহ সেনাবাহিনী এবং স্থানীয় জনগন মিলে প্রায় পাঁচ ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। রোয়াংছড়ি বাজারের নিকটবর্তী সেনা ক্যাম্প হওয়ায় আগুনের শুরু থেকে তাদের উপস্থিতির জন্য অনেক জিনিসপত্র রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে বলে স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ জানান। ধারণা করা হচ্ছে অগ্নিকাÐে ৬ থেকে ৭ কোটি ( স্থানীয়দের ভাষ্য মতে) টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। স্থানীয় জনসাধারণ তাদের বিপদের সময় সেনাবাহিনীকে পাশে পেয়ে কৃতঙ্গতা প্রকাশ করেন।