দুই সপ্তাহের মধ্যে পারমাণবিক পরীক্ষা কেন্দ্র ভাঙার ঘোষণা উ. কোরিয়ার

19

ট্রাম্প-কিম বৈঠককে সামনে রেখে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে নিজেদের একটি পারমাণবিক পরীক্ষা কেন্দ্র ভাঙার ঘোষণা দিয়েছে উত্তর কোরিয়া। দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কেসিএনএ শনিবার জানিয়েছে, বিদেশি সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে ২৩-২৫ মে’র মধ্যে ভাঙার প্রক্রিয়া চালানোর জন্য এখন কারিগরি পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। তবে বিদেশি বিশেষজ্ঞরা ওই অনুষ্ঠানে থাকবেন কিনা তা জানানো হয়নি। ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি এসব খবর জানিয়েছে।
দীর্ঘদিনের টানাপোড়েনের পর আগামী ১২ জুন সিঙ্গাপুরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উনের মধ্যে বৈঠকের দিনক্ষণ নির্ধারিত হয়েছে। গত এপ্রিলে দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা কিমকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছিল, মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকের আগে দেশটি তাদের একটি পারমাণবিক পরীক্ষা কেন্দ্র বন্ধ করে দেবে। ভাঙার কাজ প্রত্যক্ষ করতে বিদেশি বিশেষজ্ঞদের আমন্ত্রণ জানানো হবে বলেও জানিয়েছিল দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা।
পশ্চিমা বিশেষজ্ঞদের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, গত সেপ্টেম্বরে উত্তর কোরিয়ার পুঙ্গে-রি নামের পারমাণবিক পরীক্ষা কেন্দ্রটি আংশিক ভেঙে পড়ে। সেই কেন্দ্রটিই এখন ভাঙার কথা বলছে উত্তর কোরিয়া। তবে দেশটির দাবি, খুবই ভালো অবস্থায় থাকা পরীক্ষা কেন্দ্রটি ভাঙার মধ্য দিয়ে তারা তাদের পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের সদিচ্ছা দেখাতে চায়।
কেসিএনএ জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়ার এই পরীক্ষা কেন্দ্রটি কবে বন্ধ করা হবে তা নির্ভর করবে আবহাওয়া পরিস্থিতির ওপর। ভাঙার কাজের মধ্যে থাকবে বিস্ফোরক ব্যবহার করে সব টানেল ধসিয়ে দেওয়া, সব পর্যবেক্ষণ সুবিধা, গবেষণা ভবন ও নিরাপত্তা পোস্টগুলো সরিয়ে ফেলা।
এসব কাজ প্রত্যক্ষ করতে দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও রাশিয়ার সাংবাদিকদের অনুষ্ঠান প্রত্যক্ষ করতে আমন্ত্রণ জানানো হবে। উত্তর কোরিয়া বলছে, তারা শুধু স্থানীয় নয়, অন্যান্য দেশের সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানাতে চায়। কারণ, তারা স্বচ্ছ উপায়ে পরীক্ষাকেন্দ্রটি গুঁড়িয়ে দিতে চায়। তবে নির্দিষ্ট কয়েকটি দেশের সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানানোর বিষয়ে উত্তর কোরিয়া বলছে, পার্বত্য এলাকার অনভ্যস্ত গভীরতায় পরীক্ষাকেন্দ্রের সীমিত জায়গার কারণে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বাংলাট্রিবিউন