তুরস্কে মায়েদের প্রতিবাদে পুলিশের কাঁদুনে গ্যাস

11

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে নিখোঁজ হয়ে যাওয়া সন্তানদের মায়েদের এক প্রতিবাদ সমাবেশে কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ করে ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে পুলিশ। এই মায়েরা ১৯৯০-র দশকে সহিংসতা চলাকালে তাদের হারিয়ে যাওয়া স্বজনদের স্মরণে নিয়মিতভাবে ওই প্রতিবাদের আয়োজন করে আসছেন বলে খবর বিবিসির।
পুলিশ কর্মকর্তারা জলকামান ও কাঁদুনে গ্যাস ব্যবহার করে প্রতিবাদ ছত্রভঙ্গ করার পাশাপাশি প্রায় ৫০ জনকে আটক করে, যাদের মধ্যে অশীতিপর প্রতিবাদকারী এমিনে ওকাকও ছিলেন। যে ঘটনা নিয়ে মাযেদের এই প্রতিবাদ তা পিকেকের বিদ্রোহ যখন তুঙ্গে উঠেছিল তখনকার ঘটনা। ওকাকের ছেলে হাসানও ১৯৯৫ সালে আটকের পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। আন্দোলনকারীরা জানিয়েছেন, ওই সময় আটকের পর থেকে যারা নিখোঁজ রয়েছেন তাদের পরিণতি কী হয়েছিল তুরস্ক সরকার তা কখনোই তদন্ত করে দেখেনি। ‘স্যাটারডে মাদার্স’ নামে পরিচিত এই গোষ্ঠীটি ১৯৯৫ সাল থেকে নিয়মিতভাবে ইস্তাম্বুলের কেন্দ্রস্থলে জড়ো হয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছিল। এবারের সমাবেশটি তাদের ৭০০তম প্রতিবাদ হতো। মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো পুলিশের এ ভূমিকার নিন্দা জানিয়েছে। ‘এটা লজ্জাজনক, রাষ্ট্রের অপরাধের জন্য বিচার চাওয়া পরিবারগুলোর সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ,’ বলেছেন হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এম্মা সিনক্লেয়ার-ওয়েব। এক বিবৃতিতে ইস্তাম্বুলের স্থানীয় সরকার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নিষিদ্ধঘোষিত কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) স্যোশাল মিডিয়া একাউন্টগুলোতে এই প্রতিবাদের প্রচারণা চলতে থাকায় এটি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। স্বায়ত্তশাসিত কুর্দিস্তানের ডাক দিয়ে পিকেকে ১৯৮৪ সাল থেকে তুরস্ক সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র লড়াই চালিয়ে আসছে। এ লড়াইয়ে হাজার হাজার লোক নিহত হয়েছে। তুরস্ক সরকার পিকেকে-কে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে বিবেচনা করে। ওকাকসহ যাদের আটক করা হয়েছে তারা পুলিশের কাছে জবানবন্দি দেওয়ার পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তুর্কি আইনজীবী এফকান বোলাচ।
আর্জেন্টিনায় সামরিক শাসন চলাকালে নিখোঁজ হওয়া সন্তানদের মায়েরা প্লাজা দ্য মায়োতে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছিল। ওই সমাবেশ থেকে উদ্বুদ্ধ হয়েই স্যাটারডে মাদার্সদের এই সমাবেশ শুরু হয় এমন জনশ্রুতি আছে। ১৯৯৯ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত এক দশক ধরে স্যাটারডে মাদার্সদের বৈঠক করতে বাধা দিয়েছিল পুলিশ, কিন্তু তারপর থেকে এই প্রথম তাদের বৈঠকে হস্তক্ষেপ করলো পুলিশ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা ১৯৯৭ সাল থেকে একটি ছবি শেয়ার করে আসছেন, ওই ছবিটি ওকাককে আটক করে নিয়ে যাওয়ার সময় তোলা হয়েছিল। বিডিনিউজ