তাজমহলে হচ্ছে ‘স্তন্যদান কেন্দ্র’

13

সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মারা গিয়েছিলেন সম্রাজ্ঞী মমতাজ। তার স্মৃতিতে সপ্তদশ শতাব্দীতে সম্রাট শাহজাহান নির্মাণ করেন দৃষ্টিনন্দন তাজমহল। প্রায় চারশ’ বছর পর সেখানে তৈরি হচ্ছে মায়েদের জন্য স্তন্যদান কেন্দ্র। রক্ষণশীল ভারতে সন্তানকে প্রকাশ্যে বুকের দুধ খাওয়াতে নারীরা বেশ দ্বিধায় ভোগেন। তাদের কথা চিন্তা করে দেশটির হাজারো স্মৃতিস্তম্ভের মধ্যে প্রথমবারের মতো তাজমহলে নেওয়া হয়েছে এ ধরনের উদ্যোগ। আর্কিওলজি সার্ভে অব ইন্ডিয়ার (এএসআই) এক শীর্ষ কর্মকর্তা বসন্ত কুমার স্বর্ণকার বলেন, তাজমহল পরিদর্শনে আসা লাখ লাখ মায়েদের সুবিধার্থে আগামী জুলাইয়ের মধ্যেই স্তন্যদান কেন্দ্র চালু হবে।
তিনি বলেন, গত সপ্তাহে তাজমহলে এক নারীর কষ্ট দেখে এ উদ্যোগের বিষয়টি প্রথম মাথায় আসে। ওই নারী একটি সিঁড়ির নিচে লুকিয়ে বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়াচ্ছিলেন, আর তার স্বামী তাকে আড়াল করার চেষ্টায় ছিলেন। অথচ, মা হিসেবে এটা (বুকের দুধ খাওয়ানো) তার মৌলিক অধিকার। প্রতিবছর প্রায় ৮০ লাখ মানুষ অমর প্রেমের নিদর্শন তাজমহল পরিদর্শনে যান।
বসন্ত কুমার বলেন, তাজমহল ছাড়াও আগ্রার আরো দু’টি স্মৃতিস্তম্ভে এ ধরনের ‘স্তন্যদান কেন্দ্র’ স্থাপনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শুধু ভারত নয়, সারাবিশ্বেই এ ব্যবস্থা চালু করা উচিৎ।
গত বছর, কলকাতায় একটি শপিংমলে সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়াতে গিয়ে নিরাপত্তাকর্মীদের কাছে হেনস্তার শিকার হন এক নারী। তাকে বাথরুমে গিয়ে শিশুকে বুকের দুধ খাওয়াতে বলা হয়। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানালেও তাতে গুরুত্ব না দেওয়ায় শপিংমলের বাইরে বিক্ষোভ করে লোকজন।