ডিএসইতে প্রধান সূচকের সঙ্গে বেড়েছে লেনদেন

4

সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচকের সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। তবে বাজারটিতে লেনদেনের পরিমাণ তিনশ কোটি টাকার ঘরেই রয়েছে। অবশ্য অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্য সূচক ও লেনদেন উভয় কমেছে। এদিন ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের কার্যদিবসের তুলনায় ২ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩৮৬ পয়েন্টে। অপর দুই সূচকের মধ্যে শরিয়াহ সূচক দশমিক ৮৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২৩২ পয়েন্টে। তবে ডিএসই-৩০ সূচক ২ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৮৯৩ পয়েন্টে নেমে গেছে।
ডিএসইর বাছাই করা কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচকটি কিছুটা কমলেও বাজারটিতে লেনদেনে অংশ নেয়া যে পরিমাণ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়ে কমেছে তার থেকে মাত্র একটি বেশি। এদিন ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ১৫৫ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৫৬টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪১টির।
এদিকে প্রধান মূল্য সূচকের পাশাপাশি ডিএসইতে কিছুটা বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। তবে আগের কার্যদিবসের মতো বাজারটির লেনদেন তিনশ কোটি টাকার ঘরেই রয়েছে। দিনভর ডিএসইতে ৩৭৮ কোটি ১৫ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩৩৮ কোটি ২০ লাখ টাকা। অর্থাৎ লেনদেন বেড়েছে ৩৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।
টাকার অংকে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানির শেয়ার। কোম্পানিটির ১৫ কোটি ৯০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা জেএমআই সিরিঞ্জের ১৫ কোটি ৮৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১১ কোটি ৩৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন। এছাড়া বাজারটিতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- ন্যাশনাল পলিমার, আরএন স্পিনিং, ব্র্যাক ব্যাংক, জিনেক্স ইনফোসিস, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, মুন্নু সিরামিক এবং ফরচুন সুজ।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩৮ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৬ হাজার ৪৭০ পয়েন্টে। বাজারটিতে হাত বদল হওয়া ২৬৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ১০৬টির, কমেছে ১১৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৫টির দর। লেনদেন হয়েছে ৭৯ কোটি ২৮ লাখ টাকা।