ট্রাম্প ও বাইডেনের প্রথম নির্বাচনী বিতর্কে তিক্ততা

3

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের কয়েক সপ্তাহ আগে প্রথম মুখোমুখি বিতর্কে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ও ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন একে অপরকে কদর্যভাবে আক্রমণ করেছেন। মঙ্গলবার রাতে ওহাইও’র ক্লিভল্যান্ডে দুই প্রার্থী ৯০ মিনিট ধরে চলা বিতর্কে যেভাবে তর্কে লিপ্ত হয়েছিলেন তাকে হোয়াইট হাউসে যাওয়ার দৌড়ে প্রার্থীদের মধ্যে অনেক বছর ধরে হওয়া বিতর্কগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বিশৃঙ্খল ও বিদ্বেষপূর্ণ বলা হচ্ছে। ক্রুদ্ধ চিৎকার ও নাম ধরে ডেকে দুই প্রার্থী করোনাভাইরাস মহামারী, শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদ ও অর্থনীতিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে একে অপরকে আক্রমণ করেছেন। বিবিসি জানিয়েছে, প্রথম এ নির্বাচনী বিতর্কে বাইডেন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্টকে ‘ভাঁড়’ বলে অ্যাখ্যা দিয়েছেন, বলেছেন ‘চুপ কর’তে। ট্রাম্পও কম যান নি, তিনি তুলেছিলেন বাইডেনের ছেলের মাদক ব্যবহারের প্রসঙ্গ।
সাম্প্রতিক বিভিন্ন জনমত জরিপে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেনকে রিপাবলিকান ট্রাম্পের চেয়ে সামান্য এগিয়ে থাকতে দেখা গেলেও গুরুত্বপূর্ণ কিছু ব্যাটলগ্রাউন্ডে দু’জনের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। ক্লিভল্যান্ডের এ নির্বাচনী বিতর্কে প্রার্থীদের অতীত কর্মকান্ড, সুপ্রিম কোর্ট, মহামারী, বর্ণবৈষম্য, নির্বাচনী অখন্ডতা ও অর্থনীতি- এ ৬টি বিষয়ের প্রত্যেকটির জন্য ১৫ মিনিট করে আলোচনার সুযোগ রাখা ছিল। বিতর্কের এক পর্যায়ে ৭৭ বছর বয়সী বাইডেনকে ৭৪ বছর বয়সী ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে অপমানসূচক নানান বাক্যবাণও ছুড়তে দেখা গেছে। “যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বাজে প্রেসিডেন্ট আপনি,” রিপাবলিকান প্রার্থীকে উদ্দেশ্য করে বলেন বাইডেন। বিতর্কের এক পর্যায়ে সঞ্চালক ট্রাম্পের কাছে তিনি ‘শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদীদের’ নিন্দা জানানোর জন্য প্রস্তুত কিনা, এমন প্রশ্ন ছুড়লে দুই প্রার্থীর দ্বৈরথ জমে ওঠে।
ট্রাম্প শুরুতে শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদীদের নিন্দা জানাবেন আশ্বাস দিলেও যখন কট্টর ডানপন্থি গোষ্ঠী ‘প্রাউড বয়েজ’ এর নাম ধরে নিন্দা জানানোর প্রস্তাব ওঠে, তখন তিনি পাশ কাটিয়ে যান। “প্রাউড বয়েজ, পিছু হটো এবং অপেক্ষা করো। কিন্তু আমি আপনাকে বলতে চাই, কারো না কারো অবশ্যই অ্যান্টিফা (যুক্তরাষ্ট্রের ফ্যাসিবিরোধী আন্দোলন) ও বামদের নিয়ে কিছু করতে হবে,” বলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এর আগে বাইডেন ট্রাম্পকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “ইনি এমন একজন প্রেসিডেন্ট যিনি জাতিগত বিদ্বেষ, জাতিগত বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টায় কুকুরকে শিষ দিয়ে ডাকার মতো সবকিছুকে ব্যবহার করেছেন।”
এর পাল্টায় ট্রাম্প বাইডেনের ১৯৯৪ সালের ক্রাইম বিল সমর্থনের প্রসঙ্গ টানেন; বলেন, সেসময় ডেমোক্র্যাট প্রার্থী আফ্রিকান-আমেরিকানদেরকে ‘ভয়াবহ শিকারি’ অ্যাখ্যা দিয়েছিলেন। ট্রাম্পের এ অভিযোগ অস্বীকার করেন বাইডেন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর তহবিল কাঁটছাঁটের প্রস্তাবে সমর্থন জানানো ডেমোক্র্যাট প্রার্থীকে উসকে দিয়ে ট্রাম্প আরও বলেন, “আপনি এমনকি ‘আইন প্রয়োগকারী’ এ শব্দগুলোও উচ্চারণ করতে পারবেন না, কেননা তাহলে আপনি আপনার উগ্র বাম সমর্থকদের হারাবেন।”
করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে কেইস ওয়েস্টার্ন রিজার্ভ ইউনিভার্সিটিতে হওয়া এই বিতর্কে দর্শকসারিতে উপস্থিত ছিলেন অল্প কয়েকজন; তাদেরকে বসতে হয়েছে সামাজিক দূরত্ব মেনে। ভাইরাসজনিত সতর্কতার কারণে রীতি অনুযায়ী দুই প্রার্থীর মধ্যে হাত মেলানোর পর্বও বাদ রাখা হয়। বিতর্কে বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রে ২ লাখের বেশি প্রাণ কেড়ে নেওয়া করোনাভাইরাস মহামারী মোকাবেলায় ট্রাম্পের নেতৃত্বের ব্যর্থতার কড়া সমালোচনা করেন। “হয় তিনি আতঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন অথবা তিনি শেয়ার বাজারের দিকে তাকিয়ে ছিলেন। অনেক মানুষ মারা গেছে, আরও মারা যাবে যদি না তিনি দ্রæত আরেকটু স্মার্ট হন,” অর্থনীতি সচলে বিধিনিষেধ তুলে নেওয়ার সমর্থক ট্রাম্পকে উদ্দেশ্য করে বলেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী।
বাইডনের ‘স্মার্ট’ শব্দ ব্যবহারে আপত্তি জানান ট্রাম্প। বলেন, “আপনি হয় ক্লাসের সবচেয়ে খারাপ কিংবা তার কাছাকাছি ধরনের ছাত্র হিসেবে ডিগ্রি নিয়েছেন। কখনো স্মার্ট শব্দটা আমার সামনে উচ্চারণ করবেন না। কখনো করবেন না।” বিবিসি জানিয়েছে, স্থানীয় কর্তৃপক্ষের দেওয়া বিধিনিষেধ অনুযায়ী বিতর্ককক্ষে উপস্থিত সবার মুখে মাস্ক থাকার কথা থাকলেও ট্রাম্পের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে কেবল ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পকে বিতর্ক চলাকালে মাস্কে মুখ ঢেকে রাখতে দেখা গেছে। স্বাস্থ্যসেবা ইস্যুতে বাইডেন ডেমোক্র্যাট পার্টির সোশালিস্টদের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছেন বলেও বিতর্কে অভিযোগ করেন ট্রাম্প। বলেন, “তারা আপনার উপর আধিপত্য করতে যাচ্ছে, জো, আপনি জানেন সেটা।”