টেকনাফে গ্রেপ্তারের পর মাদকের দুই আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

12

কক্সবাজারের টেকনাফে মাদক মামলার দুই আসামি গ্রেপ্তার হওয়ার পর পুলিশের অভিযানের মধ্যে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। বুধবার রাত সোয়া ১টার দিকে টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের খুরেরমুখ এলাকায় গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে বলে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশের ভাষ্য। নিহত আব্দুর রশিদ ওরফে ডাইল্ল্যা (৪৭) সাবরাং ইউনিয়নের কচুবনিয়া এলাকার মৃত ইমাম শরীফের ছেলে। আর আবুল কালাম (৩৪) একই ইউনিয়নের আব্দুর রহমানের ছেলে। খবর বিডিনিউজের
পুলিশ বলছে, রশিদের বিরুদ্ধে মাদক ও মানবপাচার এবং নারী-শিশু নির্যাতনের ছয়টি মামলা রয়েছে। আর রহমানের বিরুদ্ধে মাদক চোরাচালানসহ বিভিন্ন অভিযোগে আটটি মামলা রয়েছে বিভিন্ন থানায়।
ওসি প্রদীপ বলেন, ‘তালিকাভুক্ত মাদক চোরাকারবারি’ পলাতক আসামি রশিদ ও রহমানকে বুধবার বিকালে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে তাদের থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তারা মাদক চোরাকারবারে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। পরে তাদের নিয়ে পুলিশ মাদক উদ্ধারে অভিযানে যায়।
পুলিশ গ্রেপ্তার দুই আসামিকে নিয়ে রাত সোয়া ১টার দিকে খুরেরমুখ এলাকায় পৌঁছালে সেখানে অবস্থান নিয়ে থাকা তাদের সহযোগীরা গুলি ছোড়ে বলে দাবি করেন ওসি। তিনি বলেন, “পুলিশও তখন আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলির এক পর্যায়ে রশিদ ও রহমান গুলিবিদ্ধ হয়।”
দুই আসামিকে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান ওসি। তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে ২২ হাজার ইয়াবা, পাঁচটি দেশীয় বন্দুক এবং ২২টি গুলি উদ্ধার করা হয়।
এ অভিযানে টেকনাফ থানার এস আই মো. বোরহান উদ্দিন, এএসআই মোহাম্মদ ফরহাদ ও কনস্টেবল হৃদয় আহত হয়েছেন এবং তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।