টানা উত্থানে দেশের শেয়ারবাজার

10

রোজার মাসজুড়ে দেশের শেয়ারবাজারে দেখা দেয়া মন্দাভাগ ঈদের পর অনেকটাই কেটে গেছে। টানা পতন থেকে ফিরে এখন টানা বড় উত্থান দেখা যাচ্ছে শেয়ারবাজারে। গত কয়েক কার্যদিবসের মতো রোববার প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সবকটি মূল্য সূচকের বড় উত্থান হয়েছে।
সূচকের এ বড় উত্থানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে ব্যাংক খাত। অথচ রোজার মাসজুড়েই ব্যাংকগুলোর শেয়ার দাম প্রায় প্রতিদিন কমে। ফলে মূল্য সূচকেও দেখা যায় নেতিবাচক প্রভাব। রোববার ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩০টি ব্যাংকের মধ্যে ২৮টিরই শেয়ার দাম বেড়েছে। বিপরীতে কমেছে মাত্র ২টির।
ব্যাংকের এমন দাপটে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ৮০ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৫২১ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দু’টি মূল্য সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ আগের দিনের তুলনায় ২৮ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ১০ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১৫ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২৭৮ পয়েন্টে।
ব্যাংক খাতের শেয়ার দামের প্রভাব অন্য খাতের ওপরে পড়াই ডিএসইতে লেনদেন হওয়া বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বাজারটিতে লেনদেন হওয়া ১৯৩টি প্রতিষ্ঠানের দাম বেড়েছে। বিপরীতে কমেছে ১০০টির দাম। আর ৪৭টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।
মূল্য সূচকের বড় উত্থান হলেও ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণ কিছুটা কমেছে। তবে বাজারটিতে লেনদেনের পরিমাণ ৭’শ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। এ নিয়ে টাকা দুই কার্যদিবস ৭’শ কোটি টাকার ওপরে লেনদেন হলো। ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৭১১ কোটি ৫৪ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৮৫৮ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। সে হিসাবে আগের দিনের তুলনায় লেনদেন কমেছে ১৪৭ কোটি ২০ লাখ টাকা।
টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশনের শেয়ার। কোম্পানিটির ২৪ কোটি ৭২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইফাদ অটোসের ২৩ কোটি ৩০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ২১ কোটি ৭৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল।
লেনদেনে এরপর রয়েছে- গ্রামীণ ফোন, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ, বেক্সিমকো, মুন্নু সিরামিক, ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপয়ার্ড, খুলনা পাওয়ার এবং কুইন সাউথ টেক্সটাইল।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্য সূচক সিএসসিএক্স ১১৫ পয়েন্ট বেড়ে ১০ হাজার ২৭২ পয়েন্টে অবস্থান করছে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৫৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। লেনদেন হওয়া ২৫১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৩৯টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৮০টির। আর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ৩২টির।