জাজ সিনেমা নির্মাণ না করলে কী হবে?

27

ঢাকাই চলচ্চিত্র দিনদিন সিনেমাশূন্য হয়ে পড়ছে। প্রত্যেক বছর সিনেমার নির্মাণ সংখ্যা কমছে। স্বাভাবিক কারণে সিনেমা হলগুলো বন্ধের উপক্রম। চলচ্চিত্রের এই ক্রান্তিকালে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া ৪১টি সিনেমা প্রযোজনা করে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে। গত বছর এই প্রতিষ্ঠান থেকে একটি সিনেমা মুক্তি দেয়া হয়। ফলে সিনেমা মুক্তির সংখ্যা আরো কমেছে।
জাজ সিনেমা নির্মাণ না করলে কী হবে? এমন প্রশ্ন তুলেছে প্রতিষ্ঠানটি। প্রতিষ্ঠানের ফেইসবুক পেজে গত ১ জানুয়ারি একটি স্ট্যাটাস দিয়েছে তারা। রাইজিংবিডির পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো:
‘…প্রতিবার নতুন বছর এলেই এক ধরনের আনন্দের অনুভ‚তি আমাদের মন ছুঁয়ে যায়। কারণ মানুষ নতুনত্বে বিশ্বাসী, নতুনকে সবসময় স্বাগত জানায়। জাজ মাল্টিমিডিয়াও এই ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম নয়! তাই চলচ্চিত্রের গল্প, গান, পরিচালক, সঙ্গীতশিল্পী, অভিনেতা, অভিনেত্রীসহ প্রতিটি ক্ষেত্রেই আমরা নতুনত্ব বজায় রাখার চেষ্টা করি। এমনকি চলিচ্চিত্র নির্মাণে ব্যবহৃত বিভিন্ন নতুন ও আধুনিক টেকনোলোজির সিংহভাগই বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে জাজ মাল্টিমিডিয়ার হাত ধরে।
২০১২ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত জাজ মাল্টিমিডিয়া ৪১টি চলচ্চিত্রের (১৩টি সিনেমা যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত) মাধ্যমে বাংলাদেশ ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে বাপ্পি, মাহি, আরেফিন শুভ, সাইমন সাদিক (রি-লঞ্চ), শিপন, নুসরাত ফারিয়া, সিয়াম, পূজা, জলি, রোশানসহ অনেক নতুন মুখ উপহার দিয়েছে। যারা বর্তমানে বাংলা চলচ্চিত্রের প্রাণ! জাজ প্রতিবছরই নতুন মুখ উপহার দিয়ে থাকে। কিন্তু ২০১৯ সাল ছিল ব্যতিক্রম। যেখানে প্রতিবছর জাজ মাল্টিমিডিয়া ৮-১০টি করে সিনেমা মুক্তি দেয়, সেখানে ২০১৯ সালে শুধু একটি মাত্র সিনেমা ‘বেপরোয়া’ মুক্তি দিয়েছে। স্বভাবতই কোনো নতুন মুখকে তুলে আনা সম্ভব হয়নি।
গতবছর বাংলদেশে মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্রের সংখ্যাও অন্য যেকোনো বছরের তুলনায় অনেক কম! হল সংখ্যা ২৫০ থেকে কমে মাত্র ৭০-এ নেমে এসেছে! জাজ মাল্টিমিডিয়া শুধুমাত্র এক বছর কার্যক্রম বন্ধ রাখায় সমগ্র চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রি আশংকাজনক পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে! কেমন হবে যদি ২০২০ সালেও জাজ কোনো সিনেমা না বানায়? বাকি হল যেগুলো ধুঁকে ধুঁকে চলছে, সেগুলোও হয়তো বন্ধ হয়ে যাবে!
আমরা অবশ্যই তা চাই না! এ কারণে নানান প্রতিকূলতা সত্তে¡ও ২০২০ সালে আমরা একাধিক চলচ্চিত্র নির্মাণের প্ল্যান হাতে রেখেছি। শুরুতেই বললাম- আমরা নতুনত্বে বিশ্বাসী। তাই নতুন বছরে চলচ্চিত্রগুলো নির্মিত হবে নতুন আঙ্গিকে, যুগোপযোগী গল্পে, আরও আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে।
সেইসঙ্গে ২০২০-এর শুরুতেই আমরা ২টি নতুন মুখ উপহার দিতে চলেছি, যারা আপকামিং দুটি বিগ বাজেটের চলচ্চিত্রে অভিনয় করবে! মাহি, জলি, নুসরাত ফারিয়া, পূজার পরে কে আসছে ঢালিউডে জাজের হাত ধরে? ঢালিউড সম্রাজ্ঞী হতে? খুব তাড়াতাড়ি জানতে পারবেন!’