চীনে এবার তিন সন্তান নীতির পরিকল্পনা

37

চীনে এক সন্তান নীতি তুলে দেয়ার পরও জন্মহার লোপ পাওয়ায় এবার তা বাড়াতে তিন-সন্তান নীতি নেওয়ার পরিকল্পনা করছে দেশটির লিয়াওনিং প্রদেশ।
চীনের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় এ প্রদেশে পরিবার পরিকল্পনা নীতি আরো শিথিল করা এবং কিছু কিছু দম্পতিকে তিন সন্তান নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে। দ্রæত জন্মহার কমে যাওয়া এবং কর্মক্ষেত্রে এর প্রভাব ঠেকাতে লিয়াওনিংয়ের স্থানীয় প্রশাসন জনসংখ্যার ভারসাম্য রক্ষায় এ পরিকল্পনা করেছে।
জনসংখ্যার বিস্ফোরণ রোধে ১৯৭৮ সালে চীন কঠোর ‘এক সন্তান নীতি’ গ্রহণ করেছিল। শক্ত হাতে ওই নীতি বাস্তবায়নের কারণে সরকার জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার কমিয়ে আনতে সক্ষমও হয়েছিল।
কিন্তু পরে জন্মহার বেশি কমে যেতে থাকায় চীন এ নীতি থেকে সরে আসে। বয়স্ক মানুষের সংখ্যা দ্রুত গতিতে বাড়ায় কর্মক্ষেত্রে এর প্রভাব ঠেকাতে জনভারসাম্য রক্ষায় ২০১৬ সালেই চীন সরকার দম্পতিদেরকে দুই সন্তান নেওয়ার অনুমতি দেয়।
তারপরও চীনে বাড়েনি জন্মহার। ২০১৮ সালে সন্তান জন্মের হার ছিল এ যাবৎকালের সর্বনিম্ন। দেশটিতে জন্মহার এখনো নিম্নমুখী। একই সঙ্গে মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধি পাওয়ায় বয়স্ক মানুষের সংখ্যা তরতর করে বাড়ছে।
গত মঙ্গলবার লিয়াওনিং প্রাদেশিক সরকারের পক্ষ থেকে তাদের ওয়েবসাইটে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, “জনসংখ্যা হ্রাস আটকাতে যেহেতু আগের নেওয়া উদ্যোগগুলো ব্যর্থ হয়েছে তাই ২০১৯ সালে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নেওয়া প্রকল্পগুলোর একটি হবে পরিবার পরিকল্পনা নীতিতে সংশোধন।”
লিয়াওনিং প্রদেশ এরই মধ্যে একটি নতুন নিয়মের একটি খসড়া তৈরি করেছে। এর আওতায় দুই সন্তান থাকা পরিবারগুলোকে শিক্ষা, বাসস্থান, সামাজিক নিরাপত্তা এবং আরো বেশি অর্থনৈতিক সহযোগিতা দেওয়া হবে। তাছাড়া, সীমান্ত এলাকায় বাস করা দম্পতিদেরকে তিনটি সন্তান নেওয়ারও অনুমতি দেওয়া হবে।
চীনের কেন্দ্রীয় সরকার দেশজুড়ে পরিবার পরিকল্পনা চালু রাখলেও কিছু কিছু অঞ্চলে এক্ষেত্রে ছাড় দিয়েছে। জাতিগত সংখ্যালঘুদের ক্ষেত্রে সাধারণত সন্তান জন্মদানের ওপর কড়াকড়ি করা হয় না। তাছাড়া, পল্লী এলাকার পরিবারগুলোর ক্ষেত্রেও বেশি সন্তান নেওয়ার অনুমতি আছে।