চবির ৫ আবাসিক হলে তল্লাশি অস্ত্র উদ্ধার

চবি প্রতিনিধি

11

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ছাত্রলীগের দুইপক্ষের সংঘর্ষের পর সংগঠনটির নিয়ন্ত্রিত পাঁচটি আবাসিক হলে তল্লাশি অভিযান চালিয়েছে প্রশাসন। পুলিশের সহযোগিতায় পরিচালিত এ অভিযানে রাম দা, লাঠিসোটা, পাথরসহ বেশকিছু দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে ঘণ্টাব্যাপী এ অভিযান চালানো হয়।
এর আগে গত বুধবার গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের পর মিছিল শেষে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে শাখা ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বী সুজনের অনুসারী বিজয় গ্রæপ ও একই কমিটির সহ-সহভাপতি রেজাউল হক রুবেলের অনুসারী সিএফসি গ্রুপের নেতাকর্মীরা। কয়েক দফা সংঘর্ষে উভয়পক্ষের সাতজন কর্মী আহত হয়।
উভয় পক্ষই আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী।
এ সংঘর্ষের পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহ আমানত হলে সিএফসি গ্রæপ ও সোহরাওয়ার্দী হলের বিজয় গ্রæপের নেতাকর্মীরা অবস্থান নেয়। ক্যাম্পাসে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়।
বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ফের দুইপক্ষ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় জড়িয়ে পড়ে? পুলিশের কঠোর অবস্থানে তারা হলে ফিরে যেতে বাধ্য হয়? বিকাল ৩টার দিকে এএফ রহমান হলের দিকে আবারও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার খবর পাওয়া যায়। এরপর বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে পাঁচটি আবাসিক হলে একযোগে অভিযান চালানো হয়।
অভিযানে হাটহাজারী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মাসুম, হাটহাজারী থানার ওসি বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী, প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা অংশ নেন।
অভিযান প্রসঙ্গে প্রক্টর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী পূর্বদেশকে বলেন, ‘আবাসিক হলে অছাত্র, বহিরাগতসহ অপরাধীদের ধরতে তল্লাশি অভিযান চালানো হয়েছিল। পাঁচটি হল থেকে অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে? তবে কাউকে আটক করা হয়নি।