চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার দুইদিনে ১০ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন

রতন কান্তি দেবাশীষ

39

এক সপ্তাহে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) দুই সভায় চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের ৬টি উন্নয়ন প্রকল্পে ১০ হাজার কোটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে একটি প্রকল্পের ব্যয় বাড়ানো হয়েছে। বাকিগুলো নতুন প্রকল্প। গত রবিবার ও গতকাল বুধবার অনুষ্ঠিত একনেক বৈঠকে এসব প্রকল্প ব্যয় অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক দুইটিতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রকল্পগুলো হচ্ছে, চট্টগ্রাম ওয়াসার অধীনে মহানগরীর পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা স্থাপন প্রকল্প, সিটি করপোরেশনের বহদ্দারহাট বাড়ইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত নতুন খাল খনন প্রকল্প, টানেল নির্মাণ প্রকল্পে বাড়তি অর্থ বরাদ্দ, চট্টগ্রামে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ স্থাপন প্রকল্প, কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়ে সম্প্রসারণ প্রকল্প এবং টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপ জেলা মহাসড়ক (জেড-১০৯৯) এর হাড়িয়াখালী হতে শাহপরীর দ্বীপ অংশ পুনঃনির্মাণ প্রশস্তকরণ এবং শক্তিশালীকরণ প্রকল্প। একনেকে অনুমোদনের ফলে এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে আর কোনো সমস্যা রইল না।
জানা যায়, গতকাল বুধবার বিকেল ৩টায় রাজধানীর শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন একনেক চেয়ারপারসন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বৈঠকে নেত্রকোনায় শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়সহ মোট ২৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০ হাজার ২৩৪ কোটি ৬০ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকার দেবে ২৪ হাজার ৮৫৪ কোটি ১৭ লাখ টাকা, সংস্থার নিজস্ব তহবিল ৫৩৯ কোটি ১৭ লাখ টাকা এবং ৪ হাজার ৮৪০ কোটি ৭৫ লাখ টাকা বৈদেশিক সহযোগিতা হিসেবে পাওয়া যাবে।
সভায় প্রায় ৫ হাজার তিনশ কোটি টাকার চট্টগ্রামের তিনটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। এগুলো হচ্ছে, চট্টগ্রাম ওয়াসার গৃহীত ৩ হাজার ৮৫৮ কোটি ৫৮ লাখ টাকায় ‘চট্টগ্রাম মহানগরীর পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা স্থাপন (১ম পর্যায়), চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ১ হাজার ২৫৬ কোটি ১৫ লাখ টাকার ‘বাড়ইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত খাল খনন প্রকল্প (সংশোধিত)’। অপর প্রকল্পের আওতায় চট্টগ্রামে একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ স্থাপন।
এর আগে গত রবিবার অনুষ্ঠিত একনেকের বৈঠকে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের তিনটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। এগুলো হচ্ছে, ‘কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণ (সংশোধিত)’ প্রকল্প। এ প্রকল্পে বাড়তি ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ১৪শ কোটি টাকা। প্রকল্প ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় এ টাকা নতুন করে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ফলে এর ব্যয় ৯ হাজার ৮৮০ কোটি ৪০ লাখ টাকায় উন্নীত হল। এছাড়া সবায় ‘কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়ে স¤প্রসারণ’ প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর ব্যয় ৩ হাজার ৭০৯ কোটি ৬১ লাখ টাকা। বৈঠকে ‘টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপ জেলা মহাসড়ক (জেড-১০৯৯) এর হাড়িয়াখালী হতে শাহপরীর দ্বীপ অংশ পুনঃ নির্মাণ প্রশস্তকরণ এবং শক্তিশালীকরণ’ প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৭ কোটি ৭৯ লাখ টাকা।
পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামা গতকাল বুধবার সাংবাদিকদের বলেন, একনেক সভায় ৩০ হাজার কোটি টাকার ২৮ টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।