চট্টগ্রামের বায়ু দূষণ নিয়ে ভাববার কি কেউ নেই?

82

বায়ু দূষণ কতটা মারাত্বক সেটা আমাদের ইতোমধ্যে অজানা নয়। কারণ আমরা বায়ু দূষণের সাথে যুদ্ধ করেই এখন বেঁচে আছি। বাংলাদেশ বায়ু দূষণের তালিকায় শীর্ষস্থান অথবা দ্বিতীয়তম অবস্থানে থাকেই। আর শহর হিসেবে ঢাকাও একই আচরণ করে। কখনও দিল্লির সাথে পাল্লা কখনও পেশওয়ারের সাথে। মোটামোটি প্রথম-দ্বিতীয় অবস্থানে থাকেই। এ থেকে উত্তরণের উপায় আমাদের বের করতে হবে। আমরা একটা শহর নিয়ে পড়ে না থেকে পুরো দেশের কথাটাও ভাবতে হবে। কারণ পুরো বাংলাদেশও বায়ু দূষণে দ্বিতীয়। তাই প্রতিটা শহর নিয়ে ভাবতে হবে।
চট্টগ্রাম বাংলাদেশের দ্বিতীয় রাজধানী। এটিও একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর। অথচ এই শহরের দূষণ নিয়ে কারও যেন কোনো মাথাব্যথা নেই। নাকি আমি ভুল দেখছি! এ শহরে বোধ হয় দূষণ হয়-ই না। নাকি এই দূষণে একমাত্র আমরই সমস্যা হচ্ছে। কিছুই বুঝে আসে না। প্রতিদিন এ শহরে পন্যবাহী গাড়ি ঢুকছে বের হচ্ছে। বিভিন্ন মালামাল এ শহরে আসছে যাচ্ছে। এসব গাড়ি থেকে যে পরিমাণ কালো ধোঁয়া নির্গত হচ্ছে তা সরাসরি আমাদেরই নাকে প্রবেশ করছে। এ শহরে বায়ুু দূষণের অন্যতম কারণ হচ্ছে যানজট। যানজটের মাধ্যমে শব্দ দূষণ, বায়ু দূষণ দুটোই বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়াও অপরিকল্পিতভাবে শিল্পকারখানা গড়ে ওঠার মাধমেও বায়ু দূষণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। শুধু তা-ই নয়, এ শহরের রাস্তায় রয়েছে প্রচুর ধুলা। যা বাতাসের সাথে মিশে গিয়ে আমাদের শ্বাস-প্রশ্বাসে চলে যায়। এছাড়াও সড়কের গাড়িগুলোতে এখনও রয়েছে কালো বিষাক্ত ধোঁয়া। যা বায়ুু দূষণ করতে সাহায্য করে। বায়ুু দূষণের কারণে পরিবেশ অতিরিক্ত গরম হয়ে যাচ্ছে, সেই গরম ঠাণ্ডা করার জন্য মানুষ অতিরিক্ত এসি ব্যবহার করছে, আবার তাতে বায়ুু দূষণ আরো বাড়ছে।
বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদী বায়ু দূষণের ফলে স্ট্রোক, ডায়াবেটিস, হার্ট অ্যাটাক, ফুসফুস ক্যান্সার এবং ফুসফুসের রোগে বছরে প্রায় লক্ষাধিক মানুষের মৃত্যু হয়। বায়ু দূষণের ফলে ২০১৭ সালে বাংলাদেশে অন্তত ১.২৩ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বিশ্বজুড়ে একযোগে প্রকাশিত ‘বৈশ্বিক বায়ু পরিস্থিতি-২০১৯’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। ‘বৈশ্বিক বায়ু পরিস্থিতি-২০১৯’ প্রতিবেদন তৈরি করার সময় ১৯৯০ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত বিশ্বে বায়ুর গুণগতমান বিষয়ক তথ্য নিয়ে এ গবেষণা করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা সংস্থা হেলথ ইফেক্টস ইনস্টিটিউট (এইচইআই) এবং ইনস্টিটিউট ফর হেলথ মেট্রিক্স এন্ড ইভালুয়েশনের (আইএইচএমই) যৌথ উদ্যোগে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, দক্ষিণ এশিয়ার ক্রমবর্ধমান বায়ু দূষণযুক্ত পরিবেশে কোনো শিশু বেড়ে উঠলে তার গড় আয়ু ৩০ মাস (২.৫ বছর) পর্যন্ত কমে যেতে পারে। বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত এলাকা রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ায়। মৃত্যুঝুঁকির অন্যতম কারণগুলোর মধ্যে বিশ্বব্যাপী বায়ুদূষণ মৃত্যুর জন্য অধিকতর দায়ী। বায়ুতে যেসব ক্ষতিকর উপাদান আছে, তার মধ্যে মানবদেহের জন্য সবচেয়ে মারাত্মক উপাদান হচ্ছে পিএম ২.৫ (২.৫ মাইক্রোমিটার বা তার চেয়ে ছোট ব্যাসের বস্তুুকণা)। এশিয়ায় বায়ুর গুণমান অনেক খারাপ। বিশেষ করে বাংলাদেশের জনগণ ১৯৯০ সাল থেকে পিএম ২.৫ মাত্রার মধ্যে বসবাস করছে।
বায়ু দূষণের কারণে বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় এক লাখ ৭৫ হাজার মানুষের মৃত্যু হচ্ছে বলে সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত পরিবেশ বিষয়ক এক সেমিনারে তথ্য পাওয়া যায়। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনসহ পরিবেশ নিয়ে কাজ করা কয়েকটি বেসরকারি সংগঠন আয়োজিত ওই সেমিনারে বায়ু দূষণজনিত কারণে বাংলাদেশের মানুষের মৃত্যুর এ তথ্য জানানো হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, বায়ু দূষণের ফলে শুধু এশিয়াতেই প্রতিবছর মৃত্যুবরণ করেন ২৬ লাখ মানুষ। এবং এই কারণে বিশ্বজুড়ে প্রতি ৮ জনের মধ্যে ১ জনের মৃত্যু হয়ে থাকে। দক্ষিণ এশিয়ায় পাকিস্তানের পর সবচেয়ে বায়ু দূষণে দূষিত দেশ বাংলাদেশ। এ গবেষণায় দেখা গেছে, বায়ুতে পিএম ২.৫ উপাদানের কারণে বিশ্বে তিন মিলিয়ন মানুষের মৃত্যু হয়।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বায়ু দূষণের কারণে মানুষের তৎক্ষণাৎ বা দ্রæত মৃত্যু হয় না। বরং এটা এক ধরণের নীরব ঘাতক। মানুষের মৃত্যুর দশটি কারণের মধ্যে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে এই বায়ু দূষণ। গত ৩০ বছরে পানি এবং পয়ঃনিষ্কাশনজনিত মৃত্যুহার কমলেও বায়ু দূষণ জনিত মৃত্যুহার বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, বায়ু দূষণের কারণে দেশের অর্থনীতিতেও এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া পড়ছে বিশেষ করে চিকিৎসা ব্যয় বাড়ছে।
তাই বায়ু দূষণ থেকে দেশকে এবং দেশের মানুষকে বাচাঁতে হলে অবশ্যই এ বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে ভাবতে হবে। ঢাকা কেন্দ্রিক ভাবনা বাদ দিয়ে চট্টগ্রামসহ দেশের সকল জেলার পরিবেশ নিয়ে ভাবতে হবে। চট্টগ্রামের সিটি মেয়র এবং এমপি মন্ত্রীদের চট্টগ্রাম নিয়েও ভাবতে হবে। ঢাকার পরে বায়ু দূষণ চরম আকার ধারণ করেছে চট্টগ্রামে। তাই এটাকে সহজ বিষয় হিসেবে না নিয়ে এ দূষণের বিরুদ্ধে কঠোর হতে হবে। এছাড়া পরিবেশবাদি সকল সংগঠনের প্রতি অনুরোধ লোক দেখানো কাজ বাদ দিয়ে আপনার এলাকার পরিবেশ সার্বক্ষণিক সুন্দর এবং সচ্ছ রাখুন আগে। একদিনের সৌন্দর্য় দিয়ে কিছুই হয় না। মানুষকে বায়ু দূষণ নিয়ে সচেতন এবং কঠোর হতে পরামর্শ দিতে হবে।
আমাদের মনে রাখতে হবে, পরিবেশ দূষণের মারাত্মক প্রভাব থেকে রক্ষার জন্য শুধু আমরা সচেতন হলেই হবে না। সরকারকেও এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে এবং কঠোর হাতে আইনের প্রয়োগ করতে হবে যাতে বায়ু দূষণের মাত্রা কমিয়ে আনা সম্ভব হয়। তাই এ বিষয়ে প্রশাসন এবং সরকারের বিশেষ ভ‚মিকা থাকা আবশ্যক।
লেখক : প্রাবন্ধিক, কলাম লেখক