চট্টগ্রামের ফুটপাত-সড়ক হকার মুক্ত করা জরুরি

10

ফুটপাত হকার্স মুক্ত করতে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ইতোপূর্বে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে দেখা গেছে। সাময়িকভাবে বন্ধ করা হলেও নগরীর হকারদের উচ্ছেদ করা সম্ভব হয়নি। নগরীতে বেশক’টি হকার্স সংগঠনও রয়েছে। তারা দেনদরবার করে হকার্সদের পুনরায় ফুটপাতে এবং রাস্তায় নামিয়ে দেয়। হকার্স সংগঠনগুলো হকার্সদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে তাদের চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন ফুটপাত ও রাস্তায় হকারী করার সুযোগ করে দেয়। যারা হকারী করে তারা স্বল্প আয়ের মানুষ। শহরে দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করার মতো সামর্থ্য তাদের নেই। যে কারণে বউ বাচ্চা নিয়ে জীবন নির্বাহের নিমিত্তে হকার্সরা এ পেশায় সম্পৃক্ত হয়ে পড়েছে। কিন্তু হকার্সদের ব্যবসার পসরা সাজানোর কারণে চট্টগ্রাম মহানগরীতে যানজট বেড়ে গেছে। জনবহুল এ শহরের রাস্তার পাশে পথচারী চলাচলের জায়গাসহ সড়কের অনেকাংশ হকার্সরা দখল করে রাখতে দেখা যায়। যার কারণে নাগরিক দুর্ভোগ সৃষ্টি হচ্ছে। একটি সুন্দর পরিচ্ছন্ন পরিবেশসম্মত নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করায় হকার্সরা অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ সমস্যার একটি যৌক্তিক সমাধান খুবই জরুরি।
আমরা হকারী ব্যবসা নগর থেকে একেবারে উচ্ছেদ করার কথা বলছি না। স্বল্প আয়ের খুদে এইসব ব্যবসায়ী নিছক জীবিকার প্রয়োজনে হকারী ব্যবসায় সম্পৃক্ত হয়ে পড়েছে। সেখানে বহু নদী সিকস্তি, ছিন্নমূল মানুষও রয়েছে। তাদের পুনর্বাসনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা ছাড়া হকারী পেশা থেকে তাদের জোরপূর্বক সরানো মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল। চসিক মেয়র তাদের ব্যবসার জন্য কিছু নীতিমালার কথা বলেছিলেন কিন্তু নানা কারণে হকার্সরা চসিকের নীতিমালা লঙ্ঘন করে ব্যবসা করে যাচ্ছে। পুলিশ ও হকার্স সংগঠন এদের নানাভাবে এসব কাজে চাঁদার মাধ্যমে উসকিয়ে চলেছে বলে বিশেষজ্ঞরা বলছেন। হকাররা তাদের ব্যবসা বন্ধ করে দিক- এ কথা আমরা বলছিনা।
চসিক ও ট্র্যাফিক আইন মেনে তারা ব্যবসা করতে পারে। হকাররা তাদের জীবিকার প্রয়োজনে ব্যবসা করছে বলে নাগরিকদের অধিকার খর্ব করতে পারে না। হকাররা ফুটপাত ও সড়ক দখল না করে তাদের ভ্রাম্যমাণ স্বল্প পুঁজির হকারী ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারে। দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার প্রতিবেদন থেকে জানা যায়- নিউমার্কেট মোড়, তিনপুল, কোতোয়ালী মোড় ও রেলস্টেশনজুড়ে যানজট ও দুর্ভোগ সৃষ্টি হচ্ছে হকার্সদের কারণে। হকারদের কাছ থেকে পুলিশ ও হকার্স সংগঠনগুলো টাকা নিচ্ছে এমন অভিযোগ হকার্সদের। চট্টগ্রাম মহানগরীতে হাজারো হকার্স রয়েছে। তাদের কাছ থেকে যারা টাকা নিচ্ছে তাদের লাখো টাকার ব্যবসা হচ্ছে এমন ধারণা পত্রিকার প্রতিবেদকের। আমরা চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মহোদয় ও আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী প্রশাসন হকার্সদের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারেন।
চট্টগ্রাম মহানগরীর হকার্সদের বিষয়ে একটি সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন করে ব্যবসা করার ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নিলে নগরীর যানজট সমস্যা কমবে এবং স্বল্প পুঁজির হকার্সদের জীবনযাপন ও সমস্যা সংকুলন হবে না। হকার্সদেরকে ট্র্যাফিক আইন এবং পথচারীদের সমস্যা সৃষ্টি ব্যবসা না করার ব্যাপারে সচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ গ্রহণ করা প্রয়োজন। হকার্সদের নিয়ে যারা নোংরা রাজনীতি করতে চায় তাদেরও বোধোদয় হওয়া জরুরি। মহানগরীকে যানজট মুক্ত রেখে, পথচারীদের দুর্ভোগ না বাড়িয়ে হকার্সরা যদি নীতিমালা মেনে ব্যবসা করে তাহলে বিষয়টি গ্রহণযোগ্যতা পাবে।