গুজবে আবেগ ও গুলিবর্ষণ কোনটাই কাম্য নয়

7

ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার ২০ অক্টোবরের ঘটনা খুবই মর্মান্তিক ও অনভিপ্রেত। জনৈক সনাতন ধর্মাবলম্বির নাম ব্যবহার করে কোন বা অন্যকোন ষড়যন্ত্রে হোক ইসলামধর্মের প্রচারক মুসলমানদের সবচেয়ে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার ধন মুহাম্মদ (দ.)কে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য কারো গ্রহণযোগ্য নয়। এক্ষেত্রে যে বা যারা এর সাথে জড়িত তাদের মুসলিম জাতি ক্ষমা করবে না। আমাদের দেশের মানুষ স্বভাবতই হুজুগি। কিছু একটা শুনলে বা দেখলে বাচবিচার না করে তা নিয়ে আবেগের সর্বোচ্চ প্রকাশ ঘটিয়ে থাকে। প্রবাদ আছে ‘বাঙালি মাত্রই আবেগ প্রবণ’। শুধু মাত্র আবেগ দিয়ে জীবন চলেনা। দেশও চলতে পারে না। আবেগের সাথে বিবেক যোগ না হলে অহেতুক দুর্ভোগ ও দুর্ঘটনা ঘটে। এমন একটি দুর্ঘটনা ঘটে গেল ২০ অক্টোবর ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায়। যার কারণে চারজন নিহত ও শতাধিক আহতের খবর এসেছে দেশের পত্র-পত্রিকায়।
ঘটনা যাই হোক এতটুকু গড়ানোর কথা নয়। কিন্তু গড়িয়ে গেছে। এর জন্য দেশের প্রধানমন্ত্রী হতে সাধারণ মানুষের হৃদয়ে প্রবল নাড়া দিয়েছে ঘটনাটি। গুজবে, হুজুগে আমাদের কান দেয়া উচিত নয়। কে কোথায় কি লিখেছে না লিখেছে তাতে ইসলাম ধর্ম মহানবী (স.) ও আল্লাহর কিছু যায় আসে না। আমরা জানি আল্লাহ আমাদের প্রভূ। তাকে যারা স্বীকার করে না, তাদের ব্যাপারে আমাদের কোন বক্তব্য নেই। আমরা স্বীকার করি এটাই আমাদের বিশ্বাস ও ঈমান। কে কি বললো তাতে মুসলমানদের ঈমান-বিশ্বাস কিছু যায় আসেনা।
মুসলিম বংশে জন্মগ্রহণ করে অনেকে আল্লাহ ও রসুলের উপর নানা কট‚ক্তি করেছে। হিন্দু বা অমুসলিম আল্লাহ ও মহানবী (স.) এর উপর কট‚ক্তি করার কারণে দেশের শান্ত পরিবেশ কে অশান্ত করা আবেগের কাজ হলেও বিবেক তা সায় দেয়না। ভোলার ঘটনা কোন বিবেকবান মানুষের কাম্য নয়। এক পক্ষ বাদবিচার না করে বিক্ষোভে ফেটে পড়লো। আরেক (পুলিশ) গুলিছুঁড়ে হত্যা করলো। কোনটাই সমর্থন যোগ্য নয়। এখানে কোন রাজনৈতিক দূরভিসন্ধি আছে কি না সেটা আমরা জানি না। তবে আইডি হ্যাক করে কারো নামে যদি কেউ এরকম উসকানি মূলক স্টেটাস দিয়ে থাকে তা সমর্থন যোগ্য নয়। আবার ক্ষুদ্র বিষয়কে কেন্দ্র করে সমগ্র জাতির বিব্রতকর অবস্থা তৈরি করাও ঐচিত্র বোধে পড়েনা।
সরকার পুলিশ কিংবা মুসলিম জনতা কারো পক্ষে হটকারীতা আমরা আশা করিনা। কিছু দিন পূর্বে ছেলে ধরা, গলাকাটা ইত্যাদি গুজব চলেছে তা শেষ হতে না হতে আবার বাচবিচার না করে কোথাকার কোন হিন্দু মহানবীকে নিয়ে কট‚ক্তি করেছে তা নিয়ে এমন পরিস্থিতি তৈরী আমাদের জন্য অতি দুঃখজনক। কেউ অন্য ধর্মের বিষয়ে অন্যায় ভাবে আক্রমণ করলে তার জন্য দেশের প্রচলিত আইন বিচার রয়েছে। আইনের তোয়াক্কা না করে এমন অনভিপ্রেত ঘটনায় জড়িয়ে পড়া ঠিক না। আবার সরকারকে ও মাথায় রাখতে হবে। পুলিশের আত্মরক্ষার নামে গুলি করে মানুষ হত্যা বৈধতা নেই। একজন পুলিশ মরলে যদি গুলি চালানো হতো তাহলে পুলিশি যুক্তির সত্যতা থাকতো। আমরা চাইনা দেশের একজন নাগরিকও পুলিশের গুলিতে নিহত হোক।
এ বিষয়ে সকলের বিবেকোচিত আচরণ আশা করে সমগ্র দেশের মানুষ। এ নিয়ে রাজনীতি করাও ঠিক হবে না।