রিজভীর অভিযোগ

‘গায়েবি’ মামলা নিয়ে বাণিজ্য চলছে

16

নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা ‘গায়েবি’ মামলা নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ‘ব্যাপক বাণিজ্য’ করছে বলে অভিযোগ তুলেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গতকাল মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘মিডনাইট ভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কয়েকদিন আগে পুলিশকে বলেছেন দ্রূত মামলার নিষ্পত্তি করতে। প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশ পেয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আগের চেয়ে বেপরোয়া হয়ে গেছে। সারাদেশে থানায় থানায় পুলিশি নিপীড়ন আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। ‘বিএনপির নেতা-কর্মী-সমর্থকদের বিরুদ্ধে যেসব গায়েবি মামলা দায়ের করেছিল সেসব মামলায় চার্জশিট দেওয়ার নাম করে ব্যাপক বাণিজ্য চলছে। বিএনপির নেতা-কর্মী-সমর্থকদের জিম্মি করে মোটা অংকের টাকা আদায় করা হচ্ছে’। জামিন পাওয়া নেতা-কর্মীদের পূণরায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ‘হয়রানি ও অর্থ আদায়’ করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।
সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে উল্লেখ করে এজন্য সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ব্যর্থতাকে দায়ী করেন তিনি। খবর বিডিনিউজের
কারাবন্দি খালেদা জিয়ার অসুস্থতা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে দাবি করে রিজভী বলেন, ‘গত পরশুদিন তার আত্মীয়-স্বজনরা দেখা করতে গিয়েছিলেন। আমরা তাদের কাছে জেনেছি তার অসুস্থতা আরও বেড়েছে। দেশনেত্রীর সুচিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি। ব্যক্তিগত বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের পরামর্শ নেওয়ারও কোনো সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না দেশনেত্রীকে। না দেওয়া হচ্ছে মুক্তি, না সুচিকিৎসা’।
তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ গত রবিবার চট্টগ্রামে অমর একুশে বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়ার এখতিয়ার প্রধানমন্ত্রীর নেই।
তার ওই বক্তব্যের জবাবে রিজভী বলেন, ‘দেশবাসী জানে তো ভিন্ন কথা। দেশবাসী জানে যে, প্রধানমন্ত্রী চাইলেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে। এটাই সতসিদ্ধ, এটাই সত্য কথা। কারণ আমরা জানি সব কিছুই প্রধানমন্ত্রীর নিয়ন্ত্রণে’।
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য শাহিদা রফিক, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, মুনির হোসেন,আবদুল খালেক, রফিক হাওলাদার, শামসুল আলম তোফা প্রমুখ।