গরমে সর্বকালের রেকর্ড ভাঙছে অস্ট্রেলিয়ায়

10

সর্বোচ্চ তাপমাত্রায় ইতিহাসের সব রেকর্ড ভেঙে যেতে বসেছে অস্ট্রেলিয়ায়। অজি আবহাওয়াবিদরা বলছেন, এ সপ্তাহে দেশের কোনো কোনো অঞ্চলে ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছাড়িয়ে যেতে পারে। এমনকি বর্তমানেও দেশটি পুড়ছে স্থান ভেদে ৪৫ ডিগ্রি গরমে। ১৭ ডিসেম্বর দেশটির জাতীয় গড় তাপমাত্রা ছিল রেকর্ড ভেঙে ৪০ দশমিক নয় ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগে ২০১৩ সালের ৭ জানুয়ারি দেশটিতে সর্বোচ্চ গড় তাপমাত্রা ৪০ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছিল।
গড়ে প্রায় ৪১ ডিগ্রির তাপমাত্রায় এ দিন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে জনজীবন। অবশ্য গত কয়েকদিন ধরেই অসহনীয় তাপমাত্রা বিরাজ করছে অস্ট্রেলিয়ায়। অথচ ঠাণ্ডায় কাঁপছে বিশ্বের অনেক দেশ। বরফে ঢেকে যাচ্ছে অঞ্চলের পর অঞ্চল। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য সান বলছে, অস্ট্রেলিয়া মহাদেশ লড়াই করছে ভয়াবহ দাবানলের সঙ্গে। যা অন্তত ছয়জনকে এ পর্যন্ত মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে। এই ক্রান্তিলগ্নে আবার যোগ হয়েছে তীব্রতর তাপমাত্রা। দেশটির আবহাওয়া অফিস পূর্বাভাসে জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার ইতিহাসের সব রেকর্ড ভেঙে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার রিভারল্যান্ড ও উত্তর-পূর্ব অ্যাডেলাইড শহরে তাপমাত্রা হতে পারে ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে। এদিকে, এখন পর্যন্ত দেশটির সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড ৫০ দশমিক সাত ডিগ্রি সেলসিয়াস। এটা হয়েছিল ১৯৬০ সালের ২ জানুয়ারি। দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার জনবিরল ওডনাডাট্টা শহরে এই রেকর্ড হয়েছিল। অবশ্য চলতি বছরের জানুয়ারিতেও দেশটিতে ৪৯ ডিগ্রির অসহনীয় তাপ ছিল। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, বাসযোগ্য শহরের তালিকায় দীর্ঘ সাত বছর প্রথম স্থানে ছিল অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন। বর্তমানেও দ্বিতীয় স্থানে আছে। সেই মেলবোর্নের মতো শহরগুলোতে প্রায় ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা আঘাত হানতে যাচ্ছে। অথচ, এসব শহরে সাধারণত গড় তাপমাত্রা থাকে ২০ ডিগ্রির মতো।