খাশোগির ২ ছেলের সঙ্গে দেখা করলেন সৌদি বাদশাহ ও যুবরাজ

24

সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আব্দুলআজিজ ও যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান নিহত সাংবাদিক জামাল খাশোগির দুই ছেলের সঙ্গে দেখা করেছেন। মঙ্গলবার বাদশাহ ও যুবরাজ রিয়াদের ইয়ামামাহ রাজপ্রাসাদে সাক্ষাৎ করেন বলে জানিয়েছে সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা এসপিএ। এর আগে সোমবার বাদশাহ ও যুবরাজ ফোনে খাশোগির পরিবারকে সমবেদনা জানিয়েছিলেন। তুরস্কের ইস্তানবুলে সৌদি কনস্যুলেটে জামাল খাশোগিকে হত্যার কথা সম্প্রতি স্বীকার করেছে সৌদি আরব।
২ অক্টোবর ইস্তানবুলে সৌদি কনস্যুলেট ভবনে প্রবেশের পর নিখোঁজ হন সৌদি অনুসন্ধানী সাংবাদিক জামাল খাশোগি। সৌদি আরব খাশোগির নিখোঁজে ভূমিকার কথা বারবার অস্বীকার করে। তুরস্ক দাবি করে, কনস্যুলেটের ভেতরেই তাকে হত্যার পর কেটে টুকরো টুকরো করা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত শুক্রবার মধ্যরাতে প্রথমবারের মতো সৌদি আরব সাংবাদিক জামাল খাশোগি নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করে। তবে তারা দাবি করে, তারা খাশোগিকে দেশে ফিরিয়ে আনতে গিয়েছিলেন। তাকে হত্যার কোনও উদ্দেশ্য ছিল না। আর হত্যাকান্ডের সঙ্গে সৌদি যুবরাজ মুহাম্মদ বিন সালমানের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে দেশটি। তবে সৌদি আরবের এমন দাবি মানছে না তুরস্কসহ আন্তর্জাতিক স¤প্রদায়। তুর্কি প্রেসিডেন্ট দাবি করেছেন, খাশোগিকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয় সেপ্টেম্বর মাসে। এসপিএ জানায়, সাহেল ও সালাহ খাশোগিকে প্রাসাদে অভ্যর্থনা জানান সৌদি বাদশাহ ও যুবরাজ। নিহত সাংবাদিকের ভাই এ সময় উপস্থিত ছিলেন। বাদশাহ ও যুবরাজ তাদের সমবেদনা জানান। খাশোগির পরিবারের এক বন্ধু বার্তা সংস্থা এপিকে জানিয়েছেন, সালাহ খাশোগির যাতায়াত ও দেশত্যাগে সৌদি সরকারের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এক বছর আগে তার বাবা সমালোচনামূলক লেখা শুরুর পর থেকেই এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর। তবে সৌদি কর্তৃপক্ষ এই নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি নিশ্চিত করেনি।
এদিকে, মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক সংবাদমাধ্যম মিডলইস্ট মনিটর আরবের একটি পত্রিকাকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে, খাশোগির আরেক ছেলে আব্দুল্লাহ যুক্তরাষ্ট্র পৌঁছেছেন। এছাড়া পরিবারের পক্ষ থেকে যুবরাজের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে মামলা দায়েরের জন্য একটি বড় আইনি প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।