কয়লা নয়, উন্নয়ন হোক সৌর জ্বালানিতে : বাপা

0

কয়লার ব্যবহার বন্ধ করে সৌরশক্তি ব্যবহার করে জ্বালানি তৈরিতে গুরুত্ব দেওয়াসহ ছয়টি দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন-বাপাসহ ৪০টি সামাজিক ও পরিবেশবাদী সংগঠন।
এসব দাবিতে শুক্রবার সকালে শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনে থেকে পদযাত্রা ও সমাবেশ করেছে তারা।
বাপার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘কয়লা প্রকল্প বাংলাদেশের পরিবেশ ও অর্থনীতি ধ্বংস করবে; কয়লা ব্যবহার বন্ধ কর, সৌরশক্তি স্থাপন কর, এসডিজি বাস্তবায়ন কর’ দাবিতে এ কর্মসূচির আয়োজন করে দক্ষিণ এশীয় জলবায়ু সংকট নিরসনে গণকর্মসূচি (সাপাক)।
সমাবেশে লিখিত বক্তব্যে সাপাকের আঞ্চলিক সমন্বয় কমিটির সদস্য ও বাপার সাধারণ সম্পাদক ডা. আব্দুল মতিন বলেন, “বাংলাদেশের উন্নয়ন কয়লা বা জীবাশ্ম জ্বালানি নয়, সৌর ও অন্যান্য বিকল্প জ্বালানি থেকে করতে হবে।”
তিনি বলেন, “পশ্চিমা বিশ্ব জীবাশ্ম জ্বালানি ব্যবহার করছে বলে আমাদেরও তাই করতে হবে, এই ধারণাটি সঠিক নয়। এখন আর যেনতেন প্রকারে উন্নয়ন করার সুযোগ নেই। শুধুমাত্র জাতিসংঘ নির্দেশিত টেকসই প্রক্রিয়াতেই তা করতে হবে।
“আমরা কারও কয়লা ডাম্পিং হতে পারি না। কারণ কয়লা একটি নোংরা জ্বালানি, আর ভালো কয়লা একটি নির্জলা মিথ্যা কথা।”
২০৫০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের চার কোটি মানুষ সমুদ্রের নোনা পানির ঝুঁকিতে পড়তে যাচ্ছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে আব্দুল মতিন বলেন, “এই শতাব্দী শেষে ক্ষতির শিকার মানুষের সংখ্যা সাত কোটিতে পৌঁছাবে।
“আজ থেকে আরও ১২ বছর পর নির্গত গ্যাসের পরিমাণ এতই ক্ষতিকর হবে যে, জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব আর নিয়ন্ত্রণযোগ্য থাকবে না, বিশ্বের সার্বিক মারাত্মক জলবায়ু দুর্যোগ হবে অপরিবর্তনীয়; মানুষসহ সকল জীব-গাছপালা হবে মৃত্যুমুখী।”
বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের উপদেষ্টা অধ্যাপক গোলাম রহমান বলেন, “আমরা প্রতি বছর গাছ লাগিয়ে পরিবেশ রক্ষায় ভূমিকা রাখতে পারি। সবাইকে সম্মিলিতভাবে সরকারকে চাপ দিয়ে পরিবেশ বিধ্বংসী কর্মকাÐ থেকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করতে হবে।”
বুড়িগঙ্গা বাঁচাও আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সচিব ও বাপার নির্বাহী সদস্য মিহির বিশ্বাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ডক্টরস ফর হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম আবু সাঈদ, নদী পক্ষের সমন্বয়ক হাসান ইউসুফ খান প্রমুখ।