কোন পথে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার পরমাণু আলোচনা?

4

উত্তর কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার পারমাণবিক অস্ত্র বিষয়ক আলোচনার সম্ভাবনা ক্রমেই ‘ক্ষীণ’ হয়ে আসছে। ট্রাম্প প্রশাসনের পররাষ্ট্র দফতর আবারও উত্তর কোরিয়াকে একটি সন্ত্রাসবাদী দেশ আখ্যা দেওয়ার পর মঙ্গলবার পিয়ংইয়ং একথা বলেছে। এর ফলে ওয়াশিংটনের প্রতি আবারও অসন্তুষ্টি প্রকাশ ঘটালো দেশটি। গত বছর পারমাণবিক পরীক্ষা বন্ধ এবং আন্তমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা না চালানোর ঘোষণা দেয় উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হয় একটি পারমাণবিক স্থাপনা। এ বছরের ফেব্রæয়ারিতে ভিয়েতনামে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের বৈঠক কোনও চুক্তি ছাড়াই শেষ হয়।
নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা প্রশ্নে অসম্মতির প্রেক্ষাপটে গত ফেব্রæয়ারিতে কিম জং উন ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যকার হ্যানয় সম্মেলন ভেঙ্গে যাওয়ার পর এ আলোচনা প্রক্রিয়া স্থবির হয়ে পড়ে। এক্ষেত্রে উত্তর কোরিয়ার ওপর আরোপ করা নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার বিনিময়ে পিয়ংইয়ং তাদের পরমাণু কর্মসূচি পরিত্যাগে আগ্রহী। এ বছরের শেষ নাগাদ নতুন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ওয়াশিংটনকে এগিয়ে আসার আহŸান জানিয়ে আসছে পিয়ংইয়ং। তবে একই সঙ্গে তারা একের পর এক তাদের বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে।
গত মাসে উত্তর কোরিয়া সুইডেনে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কার্যকর পর্যায়ের পরমাণু আলোচনা থেকে বেরিয়ে এসে বলেছে, তারা ওয়াশিংটন প্রস্তাবিত ‘নতুন ও গঠনমূলক’ সমাধানের অনীহায় অসন্তুষ্ট। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের বার্ষিক এক প্রতিবেদনে উত্তর কোরিয়াকে একটি সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্র হিসেবে আবারও আখ্যায়িত করা হয়। দেশটি ‘বিদেশের মাটিতে গুপ্তহত্যা ঘটিয়েছে’ বলে উল্লেখ করা হয় প্রতিবেদনে।
এদিকে উত্তর কোরিয়ার সরকারি বার্তা সংস্থা কেসিএনএ জানায়, দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এমন তথ্যের নিন্দা জানিয়ে এটিকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও উস্কানিমূলক হিসেবে উল্লেখ করেছে। উত্তর কোরীয় মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের এমন দৃষ্টিভঙ্গি ও অবস্থানের কারণে পিয়ংইয়ং ও ওয়াশিংটনের মধ্যে সংলাপের সম্ভাবনা একেবারে ক্ষীণ হয়ে আসছে। গত জুনে ট্রাম্প এবং উনের মধ্যে সাক্ষাতের পর জুলাইয়ের শেষদিকে প্রথমবারের মতো ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করে উত্তর কোরিয়া। সর্বশেষ ৩১ অক্টোবর ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালায় পিয়ংইয়ং। চলতি বছরে এটি দেশটির ১২তম ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা।