কোনটি সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর কলা

18

ক্যালরির চাহিদা মেটাতে সবচেয়ে সহজলভ্য ফল কলা। ফলটিতে থাকা ক্যালরির পরিমাণ ১০০। এছাড়াও এতে রয়েছে খনিজ পদার্থ, ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। যা আমাদের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সহায়তা করে। বাজারে সহজেই পাওয়া যায় নানারকম কলা। পাকার সঙ্গে সঙ্গে পরিবর্তন হয় কলার রং। যেমন: সবুজ রংয়ের কলা, হলুদ রংয়ের, হালকা দাগযুক্ত কলা। ফলে আমরা প্রায়ই ভেবে থাকি, কোনটি সবচেয স্বাস্থ্যকর কলা। পাঠকদের জন্য বিভিন্ন রংয়ের কলার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো-
কলা পেকে গেলে তার রঙের পরিবর্তন হয়। প্রত্যেক কলারই বিভিন্ন রকম পুষ্টিগুণ রয়েছে। কিন্তু এ নিয়েই আমরা সবচেয়ে বেশি দ্বিধায় পড়ি।

সবুজ রংয়ের কলা : কলার রং সবুজ থাকলে এটি হতে পারে স্বাস্থ্যকর খাবারগুলোর মধ্যে অন্যতম। যারা খাবারে চিনি কম খান তাদের জন্য সবুজ রঙের কলা উৎকৃষ্ট। সবুজ রঙের কলাকে কাচকলাও বলা হয়। এতে প্রো-বায়োটিক ব্যাকটেরিয়া থাকে। যা আমাদের হজম প্রক্রিয়ার জন্য খুবই ভালো কাজ করে।

হলুদ রংয়ের কলা : অনেকেই এ রঙের কলাকে সবচেয়ে উপযুক্ত মনে করেন। এ কলা খেতে মিষ্টি ও নরম। সবুজ কলার থেকে হলুদ রংয়ের কলায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বেশি থাকে। পাকার সঙ্গে সঙ্গে কলার অ্যান্টি-অক্সিডেন্টও বেড়ে যায়। তবে পুষ্টিবিদরা টাইপ-২ ডায়েবেটিকসে আক্রান্তদের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স থাকা এ কলা পরিহারের পরামর্শ দিয়েছেন।

দাগযুক্ত কলা : যে কলায় যত বেশি দাগ থাকে সে কলায় তত বেশি সুগার থাকে। দাগ থাকা বাদামি জায়গাগুলোতে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে।

বাদামি রংয়ের কলা : কলা খুব বেশি পেকে যাওয়ার পর যখন বাদামি রং ধারণ করে তখন আমরা অনেকেই এটি খাই না। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো বাদামি রঙের এ কলাতেই সবচেয়ে বেশি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে। এ ফলকে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের পাওয়ার হাউসও বলা হয়।
এতে সুগারও থাকে অনেক বেশি। এ রঙের কলার ক্ষেত্রে ডায়াবেটিকস আক্রান্তদের সতর্ক থাকতে হবে। সূত্র : ইন্টারনেট