কেমন হবে পূজার পোশাক

সাইমন চুমুক

12

দুর্গাপূজা কিন্তু চলেই এসেছে প্রায়। প্রস্তুত হচ্ছে বাংলা তথা গোটা বিশ্ব। এখন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে দুর্গাপূজা। তাই এতবড় উৎসবের আনন্দে সবাই মেতে উঠতে চায়। প্রতি বছরই কিন্তু নতুনভাবে সাজতে সবাই চায়। প্যান্ডেলের মধ্যমনি হবার ইচ্ছাটা কিন্তু সবারই থাকে। আর এবছরও তা বাদ যাবে না। এ বছরের নতুন ফ্যাশন কি? কি এসেছে বাজারে নতুন? এসব চিন্তা এখন থেকেই শুরু হয়ে গেছে। সময় পাল্টাবার সাথে সাথে পুজোর ফ্যাশনও পাল্টেছে। পুজোর সাজ হওয়া চাই একদম অন্যরকম। সারাবছর জিন্স, কুর্তা। কিন্তু পূজা মানে আধুনিকতা আর আভিজাত্যের মেলবন্ধন। তাই পুজোয় শাড়ি পরার ঝোঁক বেশি। অনেকেই পছন্দ করেন বুটিকের পোশাক।
তাই পূজাকে কেন্দ্র করে নগরীরর বুটিক হাউসগুলো পার করছে ব্যস্ত সময়। নগরীর কয়েকটি বুটিক হাউসে গিয়ে দেখা যায় এবার শাড়ির চাহিদা বেশ ভালো। এছাড়াও মঙ্গলগিরি কটন, মধুবনি, মাধবীলতা এসব শাড়িরও বেশ কদর রয়েছে ক্রেতাদের। এ বছর আঁচল বা পাড়ে চেকস্ যুক্ত হয়েছে ফ্যাশনে। ১৮ থেকে ৫৮ বছর বয়সের সবাই আসছেন নতুন শাড়ির খোঁজে। আসলে পুজোর সময় সারাবছর জিন্স টপ পরা মেয়ে আজ শাড়িতেই যেন অনন্যা। বিক্রেতারা জানান, পুজোর সময় একটু অন্য ধরনের খোঁজ চলে ক্রেতাদের। আসলে পূজোর দিনগুলো তারা একদম অন্য রকম সাজতে চান। তাই শাড়ি তাদের কাছে স্পেশাল। এ বছর সিল্কের সঙ্গে হ্যান্ডলুম বা তসরের সঙ্গে হ্যান্ডলুম ঢুকে গেছে ফ্যাশনে।
এছাড়াও পাটলি পাল্লু, মাইসরি সিল্ক বেশ চলছে। ঘিচারের সঙ্গে ব্রোকেডের পারও চলছে। এবারের ফ্যাশনে আন্তর্জাতিক ফ্যাশনের একটু ছোঁয়াও রয়েছে বলে জানান বেশ কয়েজন ফ্যাশন ডিজাইনার।
ফ্যাশন হাউসগুলোর ঘেরদেওয়া পালাজো, কামিজের সঙ্গে লম্বা কোটি ও স্কাট, শাড়ির সঙ্গে কোর্ট, জিন্স, জর্জেট বা শিফনের শাড়ি, শাড়ির সঙ্গে কেইপ, কামিজের সঙ্গে শাড়ি বা হাতকাটা ফুলেল ছাঁটের কামিজ, ফেব্রিক ড্রেসের সঙ্গে ওভার কোর্ট বেশ ভালোই চলছে।
আর বিভিন্ন ধরনের প্রিন্টের চাহিদা ছিল প্রথম থেকেই। এবারও আছে। গরদ, সিল্ক, জামদানি আর সূতির পোশাকের চাহিদাতো সারা বছরই থাকে। পূজাতেও তা বাদ যায় না। পুজোর পোশাকের নক্সায় জমকালো ফিউশন নেই। কিন্তু পূজার বিভিন্ন জিনিস স্বস্তিকা, চক্র, বেলপাতা ছাড়াও আরও নানান পূজোর অনুসঙ্গ শাড়ি বা পোশাকে থাকলেই শারদীয়ার জন্য পারফেক্ট।
পূজোর সময় হালকা গরম থেকেই যায়। তাই সকালে অঞ্জলি দেবার জন্য হালকা সূতির পোশাক আরামদায়ক। আর যারা শাড়ি পরতে চান গরদ বা তসরের শাড়ি অঞ্জলির জন্য বেশ ভালো। তার সঙ্গে যদি বেছে নেন মানানসই গোল্ড প্লেটের গয়না তাহলে দারুন মানাবে। একটা ট্র্যাডিশনাল খোঁপা তার একধারে বেলফুলের মালা একটা সুন্দর ট্র্যাডিশনাল লুক দেবে। এছাড়াও পোশাকের সঙ্গে যদি গাঢ় চোখের মেকআপ চান করতেই পারেন। তবে সেক্ষেত্রে ঠোঁট হবে হালকা ম্যাট ফিনিশ। আর যদি লিপস্টিকের রঙ গাঢ় চান তাহলে অ্যাই মেকআপটা হালকাই ভালো লাগবে। চোখে শুধু মোটা করে কাজল ভালো লাগবে। তবে যারা গয়না পরতে ভালোবাসেন তারা এইসময় জাঙ্ক গয়নার পরিবর্তে একটু ট্র্যাডিশনাল গয়না বা এথনিক জুয়েলারি পরলে বেশি ভালো লাগবে এই পুজোতেই।