কিশোরী নিহত উখিয়ায় বসতবাড়িতে ডাকাতি, গুলিবর্ষণ

উখিয়া প্রতিনিধি

20

উখিয়ার উপকূলীয় এলাকা জালিয়াপালং ইউনিয়নের মোহাম্মদ শফিরবিল গ্রামের আবুল ফরাজের ছেলে আমির হামজা ও আব্দুল হকের ছেলে মুহিবুল্লাহ’র বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকতি সংগঠিত হয়েছে। ডাকাত আসার খবর পেয়ে বাড়ির লোকজন দরজা বন্ধ করলে ডাকাতেরা দরজা লক্ষ্য করে পরপর কয়েক রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে। এসময় ডাকাতের গুলিতে আমির হামজার মেয়ে সোনারপাড়া উচ্চবিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী জুলেখা বেগম(১৫) গুরুতর আহত হয়। গতকাল মঙ্গলবার ভোর রাতে এ ঘটনাটি ঘটে। আহত জুলেখা বেগমকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা গেছে বলে জালিয়াপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, বিগত কয়েকদিনের মধ্যে যে সমস্ত ডাকাতি হয়েছে এসমস্ত ডাকাতগুলো পালংখালী হয়ে তেলখোলা গভীর জঙ্গলাকীর্ণ পদ বেয়ে উপকূলে চলে আসে। পরে সুযোগ বুঝে ডাকাতি করে চলে যায়। এ ঘটনার পর থেকে গ্রামবাসী রাত জেগে পাহারা দেওয়ার পরও ডাকাতি রোধ করা সম্ভব হচ্ছেনা বলে ওই চেয়ারম্যান জানান।
ডাকাতির প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে ছোয়াংখালী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোজাম্মেল হক জানান, ১৫/১৬ জনের সশস্ত্র ডাকাতদল এর আগে ছোয়াংখালী হাবিবুল্লাহ হেডম্যানের বাড়িতে ডাকাতি করতে গিয়ে কুকুরের কবলে পড়ে ব্যর্থ হয়। পরে ডাকাতদল তার বসতবাড়ি লক্ষ্য করে বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে মোহাম্মদ শফিরবিলের দিকে চলে যায়।
উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুল খায়ের ডাকাতির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উপকূলীয় এলাকা মোহাম্মদ শফিরবিল, ছোয়াংখালী, মাদারবুনিয়া, বাইলাখালী সহ প্রভৃতি এলাকায় রাত নামলেই ডাকাতের উপদ্রব বেড়ে যায়। সীমিত সংখ্যক লোকবল নিয়ে এসব ডাকাতদের ধরার জন্য পুলিশ রাতভর পরিশ্রম করছে।