কিডনি রোগীর মৃত্যুর মিছিল থামাতে মানবিক সমাজ এগিয়ে আসুন

7

সৈয়দ মোহাম্মদ জাহেদুল হক

কিডনি-বিকল একটি মরণব্যাধি রোগ। পরিসংখ্যান মতে দেশের মোট জনশক্তির ১৬-১৮ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় পৌনে ৩ কোটি মানুষ কোনো না কোনো ভাবে কিডনি রোগে আক্রান্ত। প্রতিবছর এ রোগের মিছিলে যুক্ত হচ্ছে প্রায় ৪০-৫০ হাজার মানুষ। এ রোগ দীর্ঘস্থায়ী, চিকিৎসাও (মৃত্যুর দিনক্ষণ পর্যন্ত) দীর্ঘমেয়াদি এবং চিকিৎসা খরচ অসম্ভব ব্যয়বহুল। দেশে মোট শিশু রোগীর ৫-৭ শতাংশই কিডনি রোগে আক্রান্ত। পরিসংখ্যান মতে ঘন্টায় ৫ জন মানুষের মৃত্যু হচ্ছে কিডনি বিকলের ফলে। মূলত কিডনি বিকল একটি মাত্র রোগ নয়, প্রাণঘাতী নানা রোগের প্রজনন কেন্দ্র। প্রতিবছর মধ্যবিত্ত-নিম্ন মধ্যবিত্ত, দরিদ্র-হতদরিদ্র শ্রেণির অসংখ্য রোগী ব্যয়বহুল চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হয়ে অকালে মৃত্যুবরণ করছে। উচ্চবিত্ত ও ধনাঢ্য রোগীরাও চিকিৎসার পেছনে দৌঁড়াতে গিয়ে একসময় নিঃস্ব হয়ে পড়ে। ভুক্তভোগী পরিবার না-পারে চিকিৎসা ব্যয় টানতে, না-পারে প্রিয়জনের মৃত্যু ঠেকাতে। প্রবাদ আছে “কিডনি রোগী মরেও যায়-মেরেও যায়”। একসময় উন্নত চিকিৎসার অভাবে সামর্থ থাকলেও জীবন বাঁচানো যায়নি আর বর্তমান দুনিয়ায় সর্বত্র উন্নত চিকিৎসা বিদ্যমান। মানুষ মরছে শুধু সামর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হওয়ার কারণে। বিনা চিকিৎসায় নিরবে নিঃশব্দে কিডনি রোগে অসংখ্য মানুষের অকাল মৃত্যুর সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। বর্তমান সমাজ ব্যবস্থা আশংকাজনক মৃত্যুর হার সম্পর্কে অবগত নয়। কিডনি রোগে মৃত্যুর মিছিল থামাতে মানবিক সমাজ ও রাষ্ট্রকে জাগিয়ে তোলার প্রত্যয়ে “কিডনি রোগী কল্যাণ সংস্থার” পথ চলা শুরু। উল্লেখ্য যে, বর্তমান সমাজ ব্যবস্থা একজন মানুষের মৃত্যু পরবর্তী শোকের মাতন, মেজবান এবং সামাজিক নানা আনুষ্ঠানিকতার পেছনে যে অর্থ ব্যয় করে থাকেন রোগীর জীবদ্দশায় কিঞ্চিৎ পরিমান অর্থও যদি চিকিৎসা খাতে ব্যয় করা হলে হয়তো রোগীর অকাল মৃত্যু হত না। আফসোস ‘বর্তমান সমাজ বেঁচে থাকতে বুঝে না, বুঝে হারিয়ে’। জীবন প্রদীপ নিভে যাওয়ার আগেই সমাজকে জাগাতে “কিডনি রোগী কল্যান সংস্থা’র” দৃঢ় প্রত্যয় “আমরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি”।
আর এটি সম্ভব শুধুমাত্র মানবিক সমাজের আন্তরিক সহযোগিতা এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে দুস্থ, অসহায় ও গরীব রোগীদের প্রতি অধিকতর সহানুভ‚তিশীল চিকিৎসা ব্যয় নির্ধারণ, চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নয়নসহ স্বাস্থ্যখাতে পরিপূর্ণ শৃংখলা প্রতিষ্ঠার কোন বিকল্প নেই। বাংলাদেশে দীর্ঘদিন ধরে উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস্ এক মারাতœক মহামারী রূপে প্রকাশ পেয়েছে। মূলত কিডনি বিকলের অন্যতম উপসর্গ হচ্ছে উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস্। কিডনি বিকল হওয়ার ফলে রক্তে সংক্রমণজনিত কারণে লিভার, ফুসফুস, হৃদরোগসহ শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে নানা রোগব্যাধি ছড়িয়ে পড়ে। চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের মতে কিডনি রোগ বংশানুক্রমিক। আল্লাহ না করুক একই সময়ে একই পরিবারে একাধিক কিডনি রোগী এবং প্রজন্মান্তর কিডনি রোগীর মত পরিস্থিতি সামাল দেয়ার সাধ্য কারো নেই। চিকিৎসা বিজ্ঞানীগণ কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের প্রভাবে ভবিষ্যতে কিডনি, ফুসফুস, লিভার ও হার্ট এর উপর মারাত্মক প্রভাব পড়তে পারে মর্মে আশংকা ব্যক্ত করেছেন। ফলে ভবিষ্যতে কিডনি বিকলের এই চলমান ধারা কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় তা ভবিষ্যতই জানান দেবে। এমনিতেই কিডনি চিকিৎসা অসম্ভব ব্যয়বহুল। তার উপর বহুমাত্রিক রোগব্যাধির চিকিৎসা কোনো একক ব্যক্তি বা পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয়। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, মারাত্মক কিডনি আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে থেকে হাতেগুনা কয়েকজন মাত্র ডায়লাইসিস পর্যন্ত পৌঁছাতে পারলেও অবশিষ্ট কিডনি রোগীরা সামর্থের অভাবে চিকিৎসা শুরুর আগেই বা চিকিৎসার মাঝপথে মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ে। একজন শেষ স্থরের কিডনি রোগী সামর্থের অভাবে ধারাবাহিক কয়েকটি ডায়লাইসিস গ্রহণে অসমর্থ হলে নিশ্চিত মৃত্যুর মুখোমুখি হতে হয়। শুধুমাত্র কিডনি উপসর্গের ক্ষেত্রে প্রতিমাসে ডায়লাইসিস, ডাক্তার ভিজিট, পরীক্ষা নিরীক্ষা, ওষধপত্র মিলে একজন রোগীর নুন্যতম খরচ ৫০-৬০ হাজার টাকা প্রায়। যাহা নিম্ন-উচ্চ মধ্যবিত্তসহ সাধারণ কোনো পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয়। একই রোগীর মধ্যে অন্যান্য জটিল রোগের উপসর্গ ও সংক্রমণ বিদ্যমান থাকলে তার চিকিৎসা ব্যয়ের পরিমান সম্পর্কে বলার অপেক্ষা রাখে না। কিডনি রোগীদের চরম দুরবস্থা সম্পর্কে ভুক্তভোগী ছাড়া সমাজের সাধারণ মানুষ অবগত নয়। কিডনি রোগে আক্রান্ত বিপদগ্রস্ত রোগীদের পাশে দাঁড়ানোর প্রত্যয়ে মানবিক সমাজকে জাগ্রত করে চিকিৎসা প্রাপ্তি নিশ্চিতে একটি সংস্থা অতিব জরুরি। এই কষ্টবোধ থেকে “কিডনি রোগী কল্যাণ সংস্থা”-“করফহবু চধঃরবহঃ ডবষভধৎব অংংড়পরধঃরড়হ” – প্রাথমিক পর্যায়ে ১) কিডনি রোগ প্রতিকারে ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টি ২) দুঃস্থ অসহায় কিডনি রোগীদের চিকিৎসা সহায়তা এবং ৩) কিডনি রোগীর বিপর্যস্ত পরিবারের আর্থসামাজিক উন্নয়নে কর্ম দক্ষতা সহায়ক প্রশিক্ষনের পরিকল্পনা নিয়ে প্রাথমিক ভাবে কাজ শুরু করেছে। এ কঠিন কাজে রাষ্ট্র ও মানবিক সমাজে আন্তরিক সহযোগিতার কোন বিকল্প নেই। আপনার যাকাত ও অনুদান সংস্থার ব্যাংক একাউন্ট মাধ্যমে প্রদান করা যাবে- “করফহবু চধঃরবহঃ ডবষভধৎব অংংড়পরধঃরড়হ”, সঞ্চয়ী হিসাব নং- ০২০০০১৫১৫৬০৮৯, অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড, প্রেস ক্লাব শাখা, জামালখান, চট্টগ্রাম, মোবাইল-০১৭১৩-২২৫৮৫৮ (সভাপতি)। নিঃসন্দেহে আমরা “সদকায়ে জারিয়ার গর্বিত অভিযাত্রি”। আল্লাহ আমাদের সহায় হউন- আমীন।

লেখক : সভাপতি, কিডনী রোগী কল্যাণ সংস্থা