কর্ণফুলী সেতুতে ঝুঁকিপূর্ণ গর্ত

পূর্বদেশ ডেস্ক

19

কর্ণফুলী তৃতীয় সেতুর (শাহ আমানত সেতু) দক্ষিণ পাশের সংযোগস্থলে মাটি, ঢালাই সরে গিয়ে বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সেই গর্ত দিয়ে দেখা যাচ্ছে নদীর জলরাশি। কয়েকটি গর্ত মানুষের দৃষ্টিগোচর হওয়ার আগেই ভরাট করা হলেও গত কয়েকদিন একটি বড় গর্ত সবার নজর কাড়ে। গর্তটি বড় হওয়ায় পথচারী ও চালকদের মারাত্মক অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে বলে জানান তারা। এছাড়াও কোনো ধরণের সতর্কতামূলক চিহ্ন না থাকায় যেকোনো মুহুর্তে বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন এপথে চলাচলকারী সাধারণ মানুষ ও যানবাহনের চালকেরা।
দু’পাশের দুটো গর্তের একটি ভরাট করা হয়েছে। কিন্তু পশ্চিম পাশের গর্তটি এখনো ভরাট করা হয়নি। গতকাল সোমবার বৃষ্টির কারণে গর্তটি আরো বড় আকার ধারণ করেছে। পানি নিষ্কাশনের সঠিক ব্যবস্থা না থাকার কারণে এমনটা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন বিশ্লেষকরা।
গতকাল সোমবার সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, গর্তের স্থানে কোনো সতর্ক চিহ্ন দেয়া হয়নি। সময়ের ব্যবধানে গর্তটি আরো বড় আকার ধারণ করছে। গর্তটির ঠিক বিপরীত পাশে আরেকটি গর্তের চিহ্ন রয়েছে। যেটা ভরাটও করা হয়েছে। ব্রিজ ও সেতুর সংযোগস্থলে মাটি সরে যাওয়ার কারণে সেতুর পিলার ঘেঁষে গর্তটির সৃষ্টি হয়েছে।
সেতু দিয়ে প্রতিদিন চলাচলকারী একাধিক ব্যক্তি জানান, গত এক সপ্তাহ ধরে দেখছি গর্তটি। সেটি দিন দিন বড় হচ্ছে। গর্তটি বড় হচ্ছে, কিন্তু দেখার কেউ নেই। এমনকি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ একটা লাল কাপড় টাঙিয়ে সাংকেতিক চিহ্নও দেয়নি। মনে হচ্ছে বড় ধরণের কোনো দুর্ঘটনা হলে তখন সবার টনক নড়বে।
সিএনজি অটোরিকশা চালক আলাউদ্দিন, মোটরসাইকেল চালক আবু জাফর ইকবাল এবং পথচারী শাহানারা আক্তার বলেন, গর্তটি অটোরিকশা, মোটরসাইকেল ও পথচারীদের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি। রাস্তার পাশে হওয়ায় আমাদের জন্য অনেক ঝুঁকিপূর্ণ। যেকোনো সময় গর্তে পড়ে প্রাণহানি ঘটতে পারে। এটি অতিসত্বর ভরাট করা প্রয়োজন।
দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাথে যোগাযোগের প্রধান সংযোগস্থল এই তৃতীয় কর্ণফুলী সেতু। এই সেতু দিয়ে শহরের সাথে চট্টগ্রামের প্রায় কোটি লোক যাতায়াত করেন। প্রথম ও দ্বিতীয় সেতুর পর ৪৯০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১০ সালে কর্ণফুলি তৃতীয় সেতু নির্মাণ করা হয়। যা জাতীয়ভাবে একটি মাইলফলক হয়ে আছে। কিন্তু নির্মাণের ৮ বছরের মাথায় এমন গর্তের সৃষ্টি প্রশ্ন তুলেছে এর নির্মাণ প্রক্রিয়া সম্পর্কে। সেতুর সাথে সংযুক্ত রাস্তার পিচ সরে যাওয়ার কারণে গর্তের সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে শুধু ভরাট করে নয়, এর যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে গর্ত আরো সৃষ্টি হবে বলে মন্তব্য করেন অনেকেই।