করোনার প্রভাব ফ্যাশনে যুক্ত হচ্ছে মাস্ক

3

এই বছরটা প্রায় সব হিসাব গড়মিল করে দিয়েছে বিশ্ববাসীর। কোথায় গেল বৈশাখ-নবান্নের উৎসব, কোথায় হারালো ঈদের শপিং সব কিছু ছাপিয়ে সবার ভেতর আতঙ্ক নিয়ে কোনোভাবে টিকে থাকার এক অঘোষিত যুদ্ধ চলছে। মহামারি করোনার কারণে আমাদের জীবনযাত্রায় নতুন করে যোগ হয়েছে বেশ কিছু জিনিস। যেগুলো আগেও ছিল, তবে গুরুত্ব ছিল না তেমন। যার অন্যতম হচ্ছে মাস্ক। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে আমাদের বেশ খানিকটা সুরক্ষা দেয় এই মাস্ক। ঘরের বাইরে মাস্ক মাস্ট।
সাধারণত বাইরে যেতে আমরা সচেতন থাকি সাজ-পোশাক নিয়ে। এই করোনার সময়ে মুখে মাস্ক পরার কারণে সেভাবে আর সাজগোজ করা হয় না। তবে মাস্কটা যেহেতু পরা হয়, আজকাল মাস্ক নিয়েই ভাবছেন অনেকে। সম্প্রতি ভারতীয় ফ্যাশন উইকের মঞ্চে দূষণ থেকে বাঁচার উপায় হিসেবে মডেলদের মুখে মাস্ক পরিয়েছিলেন ডিজাইনার অভিষেক। তিনি মাস্ক ব্যবহার সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করেও তুলতে চেয়েছেন।
এই ডিজাইনার বলেন, আগামী দিনে মাস্কের গুরুত্ব অনেক বাড়বে। লোকে হ্যান্ডব্যাগ, ওয়ালেট কেনার মতো করে মাস্ক কিনবে। পোশাকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে অনেকেই কাপড়ের মাস্ক ব্যবহার করছেন এখন। যদি নিজেরা ডিজাইন করে মাস্ক তৈরি করেন অবশ্যই সঠিক মাপ নিয়ে নেবেন, যেন বাইরের কিছু না ঢুকতে পারে।
আবার ঠিকমতো শ্বাস নেওয়া যায়। জনপ্রিয় ব্র্যান্ড লুবনান ট্রেড কনসোর্টিয়ামের পরিচালক মনিরুল হক খান বলেন, করোনার জন্য দেশের না শুধু, বিশ্বের ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি ক্ষতির মুখে পড়েছে।
আর গতানুগতিক পোশাকের বাইরে গিয়ে মানুষের জীবন রক্ষায় প্রয়োজন ও ফ্যাশন দু’টিই রক্ষা হয়, এই বিষয়গুলো নিয়ে এখন থেকেই ভাবতে হবে। যেহেতু এখন সবাই মাস্ক ব্যবহার করছেন, এটি অবশ্যই স্বাস্থ্যকর ও আরামদায়ক কাপড়ে তৈরির কথা সব হাউসই ভাবছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মাস্ক যেন পরা হয় অবশ্যই মহামারিতে সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে। কাপড় দিয়ে তৈরি মাস্কও তিন লেয়ারের হতে হবে। আর এটি দিয়ে মুখ-নাক ঠিকভাবে ঢেকে রাখতে হবে। একটি মাস্ক কয়েকবার ব্যবহার করতে হলে, নিয়মিত পরিষ্কার করে ব্যবহার করতে হবে।