কম খরচে ভ্রমণ টিপস

5

এডভেঞ্চারের নেশা তো আর বুড়ো বয়সে চাপে না, চাপে কিশোর বয়সেই। আর এই নেশার রশদ যোগান দিতে গিয়ে প্রায় সব ছাত্র-ছাত্রীদেরই পড়তে হয় খরচ সামলানোর বিপাকে। একে বাড়ি থেকে অনুমতি দেয় না। যাও অনুমতি মেলে খরচ যেন আর মেলানোই যায় না। আমি নিজেও এই সমস্যাগুলোতে পড়েছি। আর নিজে নিজে কিছু সমাধান তৈরি করে ঘুরে বেড়িয়েছি পুরো ছাত্রজীবন। সেই সকল বাক্তিগত অভিজ্ঞতার থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য কিছু কম খরচ করে ভ্রমণ করার কিছু টিপস নিয়ে এই লেখা।
নিজেকে অবশ্যই যোগ্য করে তুলুন : আপনি শুধু সংগঠনের সাথে যুক্ত হলেই তো আর হবে না। আপনাকে অবশ্যই বাকিদের থেকে আলাদা হতে হবে। কারণ সংগঠন তো অনেকেই করে। তাদের মধ্য থেকে আপনি কেন আলাদা? কেন বিভিন্ন সুযোগ সুবিধাগুলো আপনাকেই দিবে? এই প্রশ্নগুলো করুন নিজেকে। তারপর নিজের যোগ্যতাকে বাড়ানোর কাজে লেগে পড়ুন।
বন্ধু বাড়ান : এই ফেইসবুকের যুগে বন্ধু খুঁজে পাওয়া কোনও ব্যাপারই না। আপনার নিজের যত বন্ধু থাকবে আপনি ভ্রমণে ততো বেশি সুবিধা পাবেন। যেমনঃ দলবল নিয়ে ভ্রমণে যেতে পারলে খরচ অনেক কমানো যায়। বেশি বেশি বন্ধুরা সাথে থাকলে বাসা থাকে অন্তত একা যেতে হচ্ছে না এই বলেও অনুমতি নেয়া যায়। আবার আপনি এমন কোথাও গেলেন যেখানে আপনার বন্ধু আছে সেখানে আপনার থাকা, খাওয়া, গাইডসহ আরও অনেক খরচ বেঁচে যেতে পারে।
ভ্রমণকারী দলগুলোর সাথে সখ্যতা গড়ে তুলুন : যারা সাধারণত সব সময় ভ্রমণ করে সেই সব দলের সাথে ভ্রমণ করুন। আপনার ভ্রমণ খরচ কমে আসবে। কারণ কোথায় কত কম খরচে ভ্রমণ করা যায় সে বিষয়ে তাদের অভিজ্ঞতার ভান্ডার অবশ্যই আপনার তুলনায় বেশি।
ছুটির দিন এড়িয়ে চলুন : ছুটির দিনে সব জায়গায় প্রচন্ড ভিড় থাকে। এই সময় আপনার ভ্রমণের লক্ষ্য আর আনন্দ দু’টোই নষ্ট হবে। পাশাপাশি যত বেশি ভিড় হবে আপনার প্রতিটি জিনিসের দাম ততো বেশি হবে। তাই অবশ্যই ছুটির দিন এড়িয়ে চলুন।
সবকিছু আগেই বুকিং করে নিন :
আপনি আপনার ভ্রমণের আগে যদি বুকিং সেরে নিতে পারেন তাহলে বিভিন্ন জায়গায় ভ্রমণ করার ক্ষেত্রে তাৎক্ষনিক মূল্য বৃদ্ধির ফলে বাড়তি খরচ হবার ঝামেলা থেকে আপনি মুক্তি পাবেন। পাশাপাশি আপনি যদি বিভিন্ন অফারের সময় বুকিং করে রাখতে পারেন তাহলে আপনি অনেক খরচ বাঁচিয়ে ফেলতে পারবেন।