কবি সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণসভা

5

বাংলা সাহিত্যের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক, নারী জাগরণের আলোর দিশারী দেশবরেণ্য বুদ্ধিজীবী কবি সুফিয়া কামালের ২০তম মৃত্যুবার্ষিকীতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. অনুপম সেন বলেছেন, অন্ধকার পথকে আলোকিত করার জন্য আজীবন সংগ্রাম করেছেন কবি সুফিয়া কামাল। অন্ধকার অচলায়তনকে মাটি চাপা দিয়ে নারীদের শিক্ষায় সুশিক্ষিত করার সংগ্রামী তিনি। সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্য দেন মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হাসিনা মহিউদ্দিন। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হৃদয়ে লালন করতেন কবি সুফিয়া কামাল। অংহকার-অহমিকা, লোভ-লালসা তাকে ছুঁতে পারেনি। যে কারণে সুফিয়া কামাল বাঙ্গালীর মধ্যমনি কবি হতে পেরেছিলেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ড. আনোয়ারা আলম বলেন, অন্ধকার যুগের মানুষকে শিক্ষায় সুশিক্ষিত করার দীপ্ত শপথে কবি সুফিয়া কামাল নিরলস কাজ করে গেছেন।
বঙ্গবন্ধু একাডেমি চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমদ এর সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক আলী আহমদ শাহীনের সঞ্চালনায় মুল প্রবন্ধ পাঠ করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ দিদার আশরাফী। বিশেষ অতিথি ছিলেন দৈনিক পূর্বদেশের যুগ্ম সম্পাদক কবি আবু তাহের মুহাম্মদ, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বেগম মমতাজ খান, চসিক কাউন্সিলর নীলু নাগ, ১৪ দলীয় জোট নেতা স্বপন সেন, শ্রমিক নেতা ছিদ্দিকুল ইসলাম, চট্টগ্রাম কর আইনজীবী সমিতির প্রাক্তন সভাপতি এড. মুহাম্মদ মুছা, শিশু সংগঠক মাহবুবুর রহমান, শিল্পী দীপেন চৌধুরী, অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম খান, সাংস্কৃতিক সংগঠক প্রণবরাজ বড়য়া।
স্মরণসভায় উপস্থিত ছিলেন নারী সংগঠক হুরে আরা বিউটি, ব্যাংকার ফাতেমা আক্তার, কবি নুর নাহার ইউনুছ নিপা, প্রশান্ত বড়–য়া, সংগঠক পারভীন আক্তার চৌধুরী, কবি তাহেরা খাতুন, শেখ আব্দুল্লাহ, হাজী ইউনুছ, মোশারফ হোসেন রুনু, রুমকী সেনগুপ্ত, এনপি সাগর, আবৃত্তিশিল্পী সোমা মুৎসুদ্দী, কবি সজল দাশ, তসলিমা নুরজাহান রুবি, মুক্তিযোদ্ধা দয়াল হরি দে, আসিফ ইকবাল, ইমরান সোহেল, চৌধুরী জসিমুল হক, হাসান মুরাদ, জেসমিন আক্তার, হারুনুর রশিদ, সমীরন পাল, শিল্পী দিল আফরোজা নবী, দীলিপ হোড়, ছরওয়ারুল আলম, কাজী আইয়ুব, আরিফুল আকবর, নাছির হোসাইন জীবন, সাথী কামাল, রতন ঘোষ, শিখা সাহা, তিতাস প্রমুখ। কবি সুফিয়া কামাল স্মারক সম্মাননা ১০ ব্যক্তিকে প্রদানের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে। বিজ্ঞপ্তি