কক্সবাজারে বাল্যবিয়ের বিরুদ্ধে ৪ শতাধিক শিক্ষার্থীর শপথ

কক্সবাজার প্রতিনিধি

6

‘বাল্য বিবাহ করবো না, বাল্য বিবাহ হতে দিবো না’ বলে শপথ নিলেন কক্সবাজারের বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রায় ৪শতাধিক শিক্ষার্থী। সোমবার সকালে কক্সবাজারের ইনানী রয়েলে টিউলিপ হোটেলে অনুষ্ঠিত ‘কিশোর-কিশোরী মেলা’ অনুষ্ঠানে তারা এ শপথ নেন।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন- তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও প্রকল্প পরিচালক মো. নুরুল করিম। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বয়ঃসন্ধিক্ষণই হচ্ছে কিশোর-কিশোরীদের কঠিন সময়। এ বয়সে যারা সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করবে, তাদের জীবন অন্ধকারে পতিত হতে পারে। তাই এ সময়ে ভুল করা যাবে না। স¤প্রতি সময়ে কিশোর গ্যাং এর নামে যা সৃষ্টি হয়েছে তা এই বয়সেরই ভুল সিদ্ধান্তের ফসল বলে মনে করেন তিনি। তাই মান সম্মত শিক্ষার যে ৬ টি মানদÐ রয়েছে, তা প্রতিটি শিক্ষার্থীদের আয়ত্ত করে নিজেকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার আহবান জানান তিনি।
প্রধান অতিথি আরো বলেন, প্রতিটি শিশুকে নিজের পিতা/মাতাকে বন্ধু ভাবতে হবে। কারণ বন্ধু নির্বাচন ভুল করলে জীবনের অনেক ক্ষতি হতে পারে। মনে রাখতে হবে, অজ্ঞ বন্ধুর চেয়ে, জ্ঞানি শত্রæ উত্তম। কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাসুদুর রহমান মোল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় মূখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ বেতারের মহা-পরিচালক নারায়ণ চন্দ্র শীল।
মূখ্য আলোচক বলেন, বাংলাদেশ বেতার থেকে শিক্ষা ও গবেষণামূলক বিভিন্ন অনুষ্ঠান প্রচার করা হয়। যা শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতে কাজে আসবে। শিক্ষার্থীদের তিনি নিয়মিত বাংলাদেশ বেতারে প্রচারিত সংবাদ ও অনুষ্ঠান শোনার আহবান জানান।
ইভটিজিং স¤পর্কে হুশিয়ারি দিয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান মোল্লা বলেন, সকালে যদি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে আমার কোন বোনকে ইভটিজিং করা হয়, দুপুরে জেলের ভাত খেতে হবে। এখানে কোন ছাড় দেয়া হবে না।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উখিয়া সার্কেল) নিহাদ আদনান তাইয়ান এবং ইউনিসেফ কক্সবাজারের চিফ অফ ফিল্ড অফিস জ্যা মেটেনিয়ার। তথ্য মন্ত্রণালয়ের আওতায় শিশু ও নারী উন্নয়ন সচেতনমূলক যোগাযোগ প্রকল্পের আওতায় ইউনিসেফের আর্থিক সহযোগিতায় বাংলাদেশ বেতার ও জন হপকিন্স ইউনিভারসিটি অফ কমিউনিকেশন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।