একটি দলের বর্জনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হচ্ছে না নির্বাচন বললেন সিইসি

12

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ না হওয়ার জন্য বড় একটি রাজনৈতিক দলের বর্জনকে দায়ী করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। গতকাল বুধবার সিলেটে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, বড় একটি রাজনৈতিক দল উপজেলা নির্বাচন বয়কট করায় ভোট কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম ও নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হচ্ছে না।
বিএনপির বর্জনের মধ্য দিয়ে গত ১০ মার্চ ৭৮টি উপজেলায় ভোটগ্রহণের মাধ্যমে শুরু হয় পাঁচ ধাপের পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। এতে ৪৩ দশমিক ৩২ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে নির্বাচন কমিশন জানিয়ছে। মার্চেই দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ ধাপে ভোট হবে। বাকি উপজেলাগুলোতে ভোট হবে রোজার পর আগামী জুন মাসে।
একটি সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজন করতে প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে এবং ভোট কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি বাড়াতে ও ভোট নির্বিঘ্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।
সিইসি বলেন, ভোটের কারচুপি ও আগের রাতে সিল মারার অভিযোগ রোধে আগামি ৪র্থ ও ৫ম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দশটি উপজেলায় ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ করা হবে। নির্বাচনে কেউ যাতে পেশিশক্তি এবং কালো টাকার জোর খাটাতে না পারে সে বিষয়ে সতর্ক থাকার আহবান জানান তিনি। আগামি ১৮ মার্চ অবাধ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার। খবর বিডিনিউজের
প্রথম ধাপে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সংঘাতের ভোট সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসায় প্রার্থী ও ভোটারদের ধন্যবাদ জানান কে এম নুরুল হুদা। আগামি কয়েক ধাপের উপজেলা নির্বাচনে একই পরিস্থিতি যাতে বিরাজ থাকে সে ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকারও আহ্বান জানান তিনি। কর্মকর্তাদের নিরপেক্ষ থাকার নির্দেশ দিয়ে সিইসি বলেন, ‘নির্বাচনের নিরপেক্ষতা নিয়ে কেউ যাতে আঙুল তুলতে না পারে সে বিষয়ে সবাইকে নজর রাখতে হবে। সকল প্রার্থী আমাদের কাছে সমান। আপনারা সবাই নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করবেন’।
দুপুরে সিলেট জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচন নিয়ে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি কামরুল আহসান, মহানগর পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া, জেলা প্রশাসক এ কাজী ইমদাদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জানসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা ও বিভিন্ন উপজেলার সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।