চুয়েটে সুলতানা কামাল

উন্নয়ন কর্মকান্ডে নারীর অংশগ্রহণে সমতা নেই

32

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল বলেছেন, নারীরা বর্তমানে উচ্চশিক্ষিত হচ্ছে, ডিগ্রিধারী হচ্ছে। কিন্তু কর্মক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ আশানুরূপ বাড়ছে না। উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেও সুবর্ণ সুযোগ নিয়েও সমাজে অবদান রাখতে না পারলে সেটা সামাজিক অপরাধ হয়। তিনি আরো বলেন, উন্নয়ন কর্মকান্ডে নারীর অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে সমতা নেই। প্রযুক্তির উন্নয়নে নারীর অন্তর্ভুক্তি বাড়ােেত হবে। নারীদের রুটিন কাজগুলোতে এখন প্রযুক্তি যুক্ত হয়েছে। তাই প্রযুক্তি ও প্রগতিতে নারীকে এগিয়ে নিতে হলে সুযোগের সমতা নিশ্চিত করতে হবে। না হয় শিক্ষিত হয়েও নারীরা পিছিয়ে পড়বে। কেননা আনুষ্ঠানিক কাজের ক্ষেত্রে নারীর শ্রমের মূল্য আছে, কিন্তু অনানুষ্ঠানিক ক্ষেত্রে নারীর অবদান মূল্যহীন। সেজন্য নারীদের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ততা বাড়ানো জরুরি হয়ে পড়েছে। তাই প্রযুক্তির উন্নয়নে নারীর সম্পৃক্ততা বাড়াতে হবে।
গতকাল মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) আয়োজিত সভায় তিনি এ কথা বলেন। চুয়েটে যৌন নিপীড়নমূলক কার্যকলাপ কঠোরভাবে দমনের লক্ষ্যে গঠিত অভিযোগ কমিটির আয়োজনে ‘প্রযুক্তি ও প্রগতিতে নারী’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন অ্যাড. সুলতানা কামাল। চুয়েটের কাউন্সিল কক্ষে অনুষ্ঠিত যৌন হয়রানি প্রতিরোধে গঠিত অভিযোগ কমিটির আহবায়ক ও পানিসম্পদ কৌশল বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. আয়শা আখতারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য ও রসায়ন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. রাজিয়া সুলতানা এবং শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন ফারজিন হাসান মৌমিতা, প্রীতি রায় ও তাবাস্সুম বিনতে রেজা।
অধ্যাপক ড. রফিকুল আলম বলেন, সভ্যতার অগ্রযাত্রায় নারীদের অনেক অবদান রয়েছে। নারীর অধিকার এখন কেবল ¯েøাগান নয়, বাস্তব প্রতিফলনও। বাংলাদেশ এখন উন্নত দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশের মিশনে আছে। সেই অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে পুরুষের পাশাপাশি নারীদেরকেও গৌরবময় অবদান রাখতে হবে।
অনুষ্ঠানে চুয়েট ডিবেটিং সোসাইটির মিছিল প্রকাশনীর সহযোগিতায় ‘প্রযুক্তি ও প্রগতিতে নারী’ শিরোনামে একটি গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন কবি সুফিয়া কামাল কন্যা অ্যাড. সুলতানা কামাল। এর আগে সকালে পুরকৌশল বিভাগের সামনে থেকে আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়। এতে অ্যাড. সুলতানা কামাল এবং অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল আলম নেতৃত্ব দেন। র‌্যালিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের নারী শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ অংশগ্রহণ করেন। এরপর ক্যাম্পাসের গোল চত্ত্বর সংলগ্ন বাস্কেটবল মাঠে জয়ধ্বনি’র অংশগ্রহণে নারী দিবসের বিশেষ ফ্ল্যাশ-মব পরিবেশন করা হয়। বিজ্ঞপ্তি