উত্তর কোরিয়ার নেতা কিমের ‘প্রথম সরকারি প্রতিকৃতি’

4

নেতা কিম জং-উনের প্রথম একটি সরকারি প্রতিকৃতি উন্মোচন করেছে উত্তর কোরিয়া। এর মধ্য দিয়ে কিম একজন পূজনীয় ব্যক্তিত্ব হিসাবেই আবির্ভূত হচ্ছেন বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। বিবিসি জানায়, উত্তর কোরিয়া জুড়ে কিমের পূর্বসূরিদের অসংখ্য প্রতিকৃতি থাকলেও কিমের তা ছিল না।কারণ, কিম স্বপ্রণোদিত কোনো নেতা হিসাবে নয় বরং এতোদিন একজন উত্তরসূরির ধাঁচেই কাজ চালিয়ে এসেছেন।
সময়ের আবহে দিনে দিনে তার ভূমিকায় পরিবর্তন এসেছে। বিশেষ করে এবছর কয়েকটি আন্তর্জাতিক সফরের প্রেক্ষাপটে। গত ৪ নভেম্বর রোববার কিউবার প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল ডিয়াজ-ক্যানেলের সফরের সময় তার এবং কিমের বিশাল দুটি প্রতিকৃতি পাশাপাশি রাখা হয় পিয়ংইয়ংয়ের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। ছবিতে দেখা যায়, কিম বাম দিকে সোজা তাকিয়ে হাসছেন। তার পরনে রয়েছে পশ্চিমা ফ্যাশনের স্যুট ও টাই।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কিমের নেতৃত্বে যে পরিবর্তন এসেছে এ ছবি তার এক উল্লেখযোগ্য নিশান। উত্তর কোরিয়া বিষয়ক বিশ্লেষক পিটার ওয়ার্ড বলেন, “কিম জং উনের প্রতিকৃতি এখন জনসম্মুখে প্রদর্শনের জন্য রাখা হচ্ছে বলেই প্রতীয়মান হচ্ছে। বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, এর মধ্য দিয়ে কিম নেতৃত্বের জায়গাটিতে প্রতীকীভাবে তার বাবা এবং দাদার সমান গুরুত্ব পাচ্ছেন।”
কিমের বাবা এবং দাদার ছবি রয়েছে উত্তর কোরিয়ার প্রতিটি বাড়ি এবং প্রতিটি জনসমাগম এলাকায়। এক সময় বিশ্বের সঙ্গে প্রায় বিচ্ছিন্ন দেশ ছিল উত্তর কোরিয়া। তার চেয়েও রহস্যময় চরিত্র ছিলেন দেশটির নতুন নেতা কিম।কিন্তু পরিস্থিতি এখন অনেক বদলেছে।
দক্ষিণ কোরিয়ার নেতা মুন জে-ইনের সঙ্গে অন্তত তিন দফা সম্মেলন করেছেন কিম। সিঙ্গাপুরে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গেও কিম সম্মেলন করেছেন। কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্র মুক্ত করতে তিনি রাজি হয়েছেন এবং সে অনুযায়ী কাজও করছেন।