উখিয়ায় স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

উখিয়া প্রতিনিধি

3

উখিয়ায় স্কুলের ক্লাস রুমে ঢুকে ছাত্রী ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে লম্পট জাহেদুল ইসলাম(৩৩) বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে ছাত্রীর পিতা মোঃ শাহাজাহান। শুক্রবার রাতে পুলিশ এই মামলা রুজু করেন। এ ঘটনায় পুলিশ ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার বখাটে জাহেদকে আটককে অভিযান চালিয়েছে বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে।
জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার প্রতিদিনের ন্যায় পূর্বডিগলিয়াপালং মুরাপাড়া গ্রামের মোঃ শাহজাহানের ৫ম শ্রেণী পড়–য়া মেয়ে কোচিং করার জন্য পূর্বডিগলিয়াপালং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় যায়। বিদ্যালয়ে প্যারা শিক্ষক নুরুল আলম নুরু বিদ্যালয়টির দরজা-জানালা খুলে দিয়ে পাশর্^বর্তী দোকানে নাস্তা করতে গেলে ওই মুহূর্তে লম্পট জাহেদ স্কুলের ক্লাস রুমে ঢুকে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। তার চিৎকারে অন্যান্য ছাত্র/ছাত্রীরা দৌড়ে গিয়ে প্যারা শিক্ষক নুরুল আলমকে বললে সে সাথে সাথে স্কুলে আসে। এসময় দরজা খুলে লম্পদ জাহেদ পালিয়ে যায়। ঘটনার পর থেকে বিষয়টি নিয়ে এলাকার অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। লম্পট জাহেদ একই এলাকার কেরামইত্তা পাড়া এলাকার মোঃ কালুর ছেলে। তার স্ত্রী ও ২ সন্তান রয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ফরহাদ জানান, ঘটনার পর থেকে বেশ কয়েকবার আসামী বাড়িতে অভিযান চালানো হয়েছে। শুক্রবার তার ভাই ও বোনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এসময় জাহেদের ছোট ভাই ওবাইদুল্লাহর শার্টের পকেটে ৭টি ইয়াবা পাওয়া যায়। যার ফলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফখরুল ইসলাম ১৫দিনের সাজা প্রদান করে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। বোনকে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।
উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল মনসুর জানান, ভিকটিমের জবানবন্দি মতে মামলা রুজু করা হয়েছে। ভিকটিমের পিতা মোঃ শাহজাহান বাদী হয়ে থানায় ধর্ষণের চেষ্টায় এ মামলাটি রুজু করেছে। এতে প্রকৃত ঘটনাকারী মোঃ কালুর ছেলে জাহেদুল ইসলামকে আসামী করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।