ইরান-যুক্তরাষ্ট্র বন্দি বিনিময়

7

সম্পর্কের অবনতির মধ্যেই ভিন্ন রূপে দেখা গেল চিরবৈরী দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানকে। বন্দি বিনিময়ের মধ্য দিয়ে সহযোগিতামূলক সম্পর্কের বিরল পদক্ষেপ দেখাল দু’দেশ। যদিও সম্পর্কের বরফ এখনো গলেনি। দীর্ঘদিন আটক থাকার পর শনিবার মুক্তি পেয়েছেন এক মার্কিন গবেষক এবং এক ইরানি বিশেষজ্ঞ। চীনা বংশোদ্ভূত মার্কিন গবেষক সিউয়ে ওয়াং গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে ইরানে তিনবছর বন্দি থাকার পর মুক্তি পেয়ে দেশে ফিরছেন।
ওদিকে, যুক্তরাষ্ট্রে বন্দি থাকা ইরানি কর্মকর্তা মাসুদ সুলায়মানি মুক্তি পেয়ে দেশে ফিরছেন। সুইজারল্যান্ডের সহযোগিতায় এই বন্দিবিনিময় হয়। সুইজারল্যান্ড সরকারের একটি বিশেষ বিমানে করে তেহরান থেকে জুরিখে গেছেন মার্কিন গবেষক ওয়াং। সেখান থেকে তাকে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হবে।
অন্যদিকে, ইরাসি স্টেম সেল বিশেষজ্ঞ মাসুদ সুলায়মানিও জুরিখে পৌঁছছেন। তাকে বিমানবন্দরে অভ্যর্থনা জানিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাওয়াদ জারিফ। গত বছর সুলাইমানিকে শিকাগো বিমানবন্দর থেকে গেপ্তার করা হয়েছিল। বাণিজ্য নিসেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ইরানে পন্য রপ্তানির অভিযোগ ছিল তার বিরুদ্ধে। হোয়াইট হাউজের এক বিবৃতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প সোলায়মানির মুক্তির বিষয়ে কোনো কথা বলেননি। তবে ওয়াংয়ের মুক্তিতে সাহায্য করার জন্য তিনি সুইজারল্যান্ড সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, “আমেরিকানদের মুক্ত করাটাকে তার প্রশাসন খুবই গুরুত্ব দিচ্ছে। বিদেশে ভুল করে আটক হওয়া সব নাগরিককে দেশে ফিরিয়ে আনতে সরকার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাবে।” বিডিনিউজ