আর কারো মা আছে

সজল দাশ

18

লালচে আভায় ভোরের সূর্য
পাখির ডাকে ডাকে,
আলোর রেখা হাত ছানিতে
ডাকতো আমার মা-কে।

ঘুম ভাঙাতো ফুল পরীরা
নিঝুম রাতে এসে,
গল্প-ছলে উঠতো সবাই
খিলখিলিয়ে হেসে।

জ্বোনাক পোকা অন্ধকারে
জ্বালতো ঘরের আলো,
আদর দিয়ে ভরতো মা-কে
লাগতো মায়ের ভালো।

চন্দ্র ডাকে, দু’হাত খুলে
আয় না আমার বুকে,
মা-জননী চাঁদের দেশে
থাকতো পরম সুখে।

তারা ডাকে,এসো এসো
আমরা সাথী হবো,
তারার রাজ্যে সারাটাক্ষণ
খেলায় মেতে রবো।
সে মার এখন আমায় নিয়ে
ব্যস্ত সময় কাটে,
কোন্ অজানা আতংকে মা
জড়িয়ে ঘুমান খাটে।

সারাটাদিন এঘর-ওঘর
থাকেন ঘরের কাজে,
আলতা রাঙা পায়ে নূপুর
রুম ঝুমা ঝুম বাজে।

আমি যেন ব্যাথা না পাই
দৃষ্টি মায়ের কড়া,
প্রশ্ন জাগে সব মায়েরা
কোন্ ধাতুতে গড়া?

আঁচল আগায়,চাবির গোছা
থাকে মায়ের কাছে,
আমার প্রিয় মায়ের মতো
আর কারো মা আছে?