‘আমেরিকার সমর্থনে বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন সৌদি যুবরাজ’

4

সৌদি সরকারকে ‘স্বৈরাচার’ আখ্যায়িত করে দেশটির সরকার বিরোধী সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকারীদের বিচার করার আহব্বান জানিয়েছেন মার্কিন সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স। মঙ্গলবার জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে দেয়া এক বক্তৃতায় এ আহব্বান জানান। স্যান্ডার্স বলেন, আমেরিকার একচ্ছত্র সমর্থন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে এতটা ধৃষ্ট করে তুলেছে যে, তিনি যেকোনো অপরাধ এমনকি হত্যাকান্ড চালাতেও দ্বিধা করছেন না। খবর পার্সটুডের।
ভেরমন্ট অঙ্গরাজ্যের এই স্বতন্ত্র সিনেটর বলেন, সৌদি আরবের ক্ষমতায় রয়েছে একটি একনায়কতান্ত্রিক ও স্বৈরাচারী সরকার যে কোনো অবস্থাতেই বিরুদ্ধ মতবাদ সহ্য করে না। তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী গণতান্ত্রিক দেশের প্রেসিডেন্ট হয়ে তিনি সৌদি আরবের স্বৈরশাসককে সমর্থন করে যাচ্ছেন। সৌদি ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক ও লেখক জামাল খাশোগি গত মঙ্গলবার তুরস্কের ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশ করে আর বের হননি। একাধিক তুর্কি সূত্র বলেছে, খাশোগিকে কনস্যুলেটের ভেতর হত্যা করে তার লাশ অন্যত্র সরিয়ে ফেলা হয়েছে। মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে আল জাজিরা উল্লেখ করেছে, ইস্তাম্বুলের একটি এলাকায় খাশোগির লাশ পাওয়া গেছে। খাশোগিকে হত্যা করার আগে তার ওপর নির্যাতন চালানো হয়েছে। তবে এই খবরের সত্যতার বিষয়ে এখনো বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি।