আগের নিয়মে বিআরটিএ’র অফিসসূচি

নিজস্ব প্রতিবেদক

16

প্রায় দুই মাস পর আবারো পুরোনো টাইমে ফিরেছে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ)। গত ৩০ সেপ্টেম্বর বিআরটিএ চেয়ারম্যান মো. মশিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক আদেশে ১ অক্টোবর হতে অর্থাৎ পূর্বের ন্যায় রবিবার হতে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সকাল ৯টা হতে বিকেল ৫টা পর্যন্ত অফিস সময়কাল বলবৎ থাকবে। এর আগে গত ৬ আগস্ট আরেক আদেশে বিআরটিএ চেয়ারম্যান সপ্তাহের শনিবারসহ প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত অফিস খোলা রাখার আদেশ জারি করেছিলেন।
প্রসঙ্গত জানা যায়, গত ২৯ জুলাই ঢাকার কুর্মিটোলায় বেপরোয়া বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পর ঢাকার ন্যায় চট্টগ্রামেও প্রতিবাদে ফেটে পড়ে শিক্ষার্থীরা। পরে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিয়ন্ত্রণে আসার পর সাড়াশি অভিযানের ঘোষণা দেয় সরকার। বিআরটিএ সার্কেল অফিসগুলোতে নতুন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা সড়ক-মহাসড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালতের লাগাতার অভিযান পরিচালনা শুরু করে।
রেজিস্ট্রেশনবিহীন গাড়ি ও ড্রাইভিং লাইসেন্স না নিয়ে গাড়ি চালনা, গাড়ির ডকুমেন্ট হালনাগাদ না থাকা, সড়কে লক্করঝক্কর মার্কা গাড়ি চালানো, মোটরযান আইন না মানাসহ নানান অপরাধে এ অসংখ্য গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা হয়। প্রায় ২০ জনের মতো চালককে কারাদন্ডও দেওয়া হয়। যে কারণে ডকুমেন্ট হালনাগাদ ও ড্রাইভিং লাইসেন্স সংগ্রহের জন্য চালক-মালিকরা বিআরটিতে ভিড় করে। এতে কাজে চাপ সামলাতে সারাদেশের বিআরটিএ সার্কেল অফিসগুলো সপ্তাহের শনিবার সহ প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা রেখে সেবা দেয়ার নির্দেশনা দেন বিআরটিএ চেয়ারম্যান। এরপর থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত অফিস খোলা রেখে সেবা দেয় বিআরটিএ। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসায় ১ অক্টোবর থেকে পুরোনো টাইমে ফিরে যাওয়ার নতুন আদেশ জারি করে বিআরটিএ চেয়ারম্যান।
এ ব্যাপারে বিআরটিএ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো. শহীদুল্লাহ পূর্বদেশকে বলেন, ‘প্রায় দুই মাস ধরে শনিবারসহ সপ্তাহের ৬দিন, প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত অফিস খোলা রাখা হয়েছিল। সেবাপ্রার্থীদের চাপ সামলাতে এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছিল। চেয়ারম্যান মহোদয়ের নির্দেশে বিআরটিএ’র সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও স্বাচ্ছ্যন্দে দৈনিক ১২ ঘণ্টা করে কাজ করেছে। যে লোকবল রয়েছে তা দিয়ে আমরা সেবা দিয়েছি। এখন ধীরে ধীরে সেবাপ্রার্থীদের চাপ কিছুটা কমছে। তাই আগের অফিস টাইমে ফিরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এতে সেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে কোন ব্যত্যয় ঘটবে না।’