অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে মামলার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিল যুক্তরাষ্ট্র

5

উইকিলিকস-এর প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের খবর প্রকাশ্যে এনেছে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) লন্ডনে ইকুয়েডরের দূতাবাস থেকে গ্রেফতার হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর তার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ গঠনের ঘোষণা দেওয়া হয়। কম্পিউটার হ্যাক করে তথ্য ফাঁসের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে ওই মামলা করা হয়েছে। গত বছর এ সংক্রান্ত নথি ফাঁস হয়েছিল।
২০১২ সালের জুন থেকে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। ৪ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) উইকিলিকসের টুইটে বলা হয়, ইকুয়েডর সরকারের উচ্চ পর্যায়ের দুইটি সূত্র থেকে তারা নিশ্চিত হয়েছে যে কয়েক ঘণ্টা থেকে কয়েক দিনের মধ্যে অ্যাসাঞ্জকে দূতাবাস থেকে তাড়ানো হতে পারে। সেই ধারাবাহিকতায় রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করে বৃহস্পতিবার তাকে ব্রিটিশ পুলিশের হাতে তুলে দেয় ইকুয়েডর। পরে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ জানায়, যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যাপর্ণের অনুরোধ সাপেক্ষে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
ভয়েস অব আমেরিকা জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র সরকার তার বিরুদ্ধে কম্পিউটার হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিপুল পরিমাণ সামরিক ও কূটনৈতিক গোপন নথি ফাঁস করে দেওয়ার ঘটনায় আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগপত্র প্রকাশ করেছে। অবশ্য এই অভিযোগের কথা জানা গিয়েছিল আগেই। ২০১৮ সালের নভেম্বরে ভার্জিনিয়ার আলেকজান্দ্রিয়া জেলা আদালতে উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে অভিযোগ গঠনের নথি ভুল করে ফাঁস করে ফেলেন প্রসিকিউটররা। এতোদিন গোপনে সেই বিচারিক অভ্যুত্থান ঘটানোর প্রচেষ্টা জারি ছিল। স্পষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। তবে অ্যাসাঞ্জ গ্রেফতারের পর আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ গঠনের ঘোষণা দিলো যুক্তরাষ্ট্র।
২০১০ সালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের লাখ লাখ সামরিক ও কূটনৈতিক গোপন নথি ফাঁস করে দেওয়ার ঘটনায় তাকে যুক্তরাষ্ট্রে এনে জিজ্ঞাসাবাদের কথা বলেছেন একজন ফেডারেল প্রসিকিউটর। যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ, সাবেক গোয়েন্দা তথ্য বিশ্লেষক চেলসি ম্যানিং অ্যাসাঞ্জের প্ররোচণায় ওই কাজ করেছেন। বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের আদালতে জামিন শর্ত ভঙ্গের অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হন অ্যাসাঞ্জ। এই অভিযোগে তার সর্বোচ্চ ১ বছরের কারাদন্ড হতে পারে। বাংলাট্রিবিউন