ভোগ্যপণ্য বিতরণে মেয়র

অর্থনীতির চাকা সচল থাকলে শ্রমিক বাঁচবে

5

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, করোনা ভাইরাস কবলিত আপদকালীন সময়ে আবাসন, সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনা ও ইমারত নির্মাণ, সড়ক পরিবহন শ্রমিকদের কাজ বন্ধ থাকায় নির্মাণ শ্রমিকদের রুটি-রুজির পথ বন্ধ হয়ে গেছে। এই শ্রমিকরা সাধারণত দৈনিক ভিত্তিক মজুরি পান।
তাই কাজ নেই, তো মজুরিও নেই। কিন্তু ক্ষুধার আগুনতো দ্বিগুণ হয়ে জ্বলে। এই সত্যটি সরকার উপলব্ধি করে এবং লকডাউনের মধ্যেও সামর্থ্য অনুযায়ী আয়Ñরুজির সুযোগ দিয়েছে। কারণ কাউকে জোর করে ঘরে আটকে রেখে ক্ষুধার আগুন নেভানো অসম্ভব। যাদের জীবনমান শ্রমবিনিয়োগনির্ভর। তাদের দৈনিক কাজ করেই চলতে হবে।
সাধ্যমত অর্থনীতির চাকা সচল থাকলে শ্রমিক বাঁচবে তাদের নিয়েই দেশ ও জাতি বাঁচবে। এই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের তীব্রতা বিস্তার রোধে সামাজিক বা শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে নিজের এবং পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।
আপনারা সকলেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও সরকারের নির্দেশনাসমূহ অক্ষরে অক্ষরে পালন করে এই সংকট উত্তরণে অগ্রণী ভূমিকা রাখবেন। গতকাল সকালে সিটি মেয়র বিভিন্ন জায়গায় অসহায় শ্রমিক পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত উপহার সামগ্রী, সাবান ও মাক্স বিতরণ কালে সিটি মেয়র এসব কথা বলেন।
তিনি বৃহত্তর চট্টগ্রাম সড়ক পরিবহন শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ৬৫৭ শ্রমিক পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন। এছাড়া চট্টগ্রামস্থ ভোলা জেলা শ্রমিক কল্যাণ সমবায় সমিতির ৪০০ সদস্যকে ভোগ্যপণ্য, উপহার সামগ্রী, সাবান ও মাক্স বিতরণ করেন।
এরপর চট্টগ্রাম জেলা ট্রাক-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের ৫শ পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। পরে তিনি চিটাগাং সংবাদপত্র হকার্স বহুমুখী সমবায় সমিতির ৪শ পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন। বিজ্ঞপ্তি