গণসংযোগে ধানের শীষের প্রার্থী শাহাদাত

অবহেলিত বাকলিয়ার উন্নয়নে নিজেকে উৎসর্গ করবো

8

চসিক নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলছেন, আমি বাকলিয়ার সন্তান। বাকলিয়া আমার নিজের এলাকা। বাকলিয়ার মানুষের সাথে আমার রক্তের সর্ম্পক। এখানে আমার জন্ম ও বেড়ে উঠা। এক সময়ের অনুন্নত বাকলিয়াকে বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সাবেক মন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান ও সাবেক মেয়র মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীনের একান্ত প্রচেষ্টায় শহরে রূপদান করা হয়। অবহেলিত বাকলিয়াকে উন্নত এলাকায় রুপান্তর করা হয়েছে। আমি মেয়র নিবার্চিত হলে বাকলিয়াকে একটি আধুনিক, সুন্দর, মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত, আবর্জনামুক্ত পরিবেশবান্ধব এলাকায় পরিণত করবো।
তিনি গতকাল রবিবার পূর্ব, পশ্চিম ও দক্ষিণ বাকলিয়ায় ধানের শীষের পক্ষে গণসংযোগকালে এসব কথা বলেন।
তিনি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদল্লাহ আল নোমান ও মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিনকে সাথে নিয়ে রাহাত্তার পুল মোড় থেকে গণসংযোগ করেন। এ সময় ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, বৃহত্তর বাকলিয়ার উন্নয়নে আবদুল্লাহ আল নোমান ও মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিনের অবদান সবচেয়ে বেশি। বাকলিয়ায় এক সময় কোন স্কুল কলেজ ছিল না। শিক্ষার মান উন্নত করার জন্য বিএনপির সময় বাকলিয়ায় উচ্চ ও মাধ্যমিক স্কুল এবং একমাত্র শহীদ এনএমজে ডিগ্রি কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। তাছাড়া বাকলিয়া স্টেডিয়াম ও কর্ণফুলী শাহ আমানত সেতু নির্মাণ করা হয়েছিল। বিএনপি বাকলিয়ার আইলকে রাস্তায় পরিণত করেছে। বাকলিয়ায় বিভিন্ন মসজিদ ও মন্দির নির্মাণে অনুদান দেয়া হয়েছিল। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে বৃহত্তর বাকলিয়াবাসীর জন্য চাইল্ড কেয়ার ও মাতৃসদন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করবো। অবহেলিত বাকলিয়ার উন্নয়নে নিজেকে উৎর্সগ করবো।
গণসংযোগকালে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদল্লাহ আল নোমান বলেন, বাকলিয়া নগরীর একটি প্রসিদ্ধ ও ঐতিহ্যবাহী এলাকা। এখানকার রাস্তাঘাট, অলিগলি সবই আমার চেনাজানা। দীর্ঘদিন ধরে অবহেলিত থাকা এ বাকলিয়ায় আমি অনেক উন্নয়ন মূলক কাজ করেছি। বাকলিয়াবাসীর প্রতি আমার অনেক দাবি আছে। সেই দাবি নিয়ে আমি ডা. শাহাদাত হোসেনের জন্য ধানের শীষে ভোট চাইতে এসেছি। ডা. শাহাদাত একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ। তাকে ধানের শীষে ভোট দিয়ে কারাবন্দী বেগম খালেদার জিয়ার মুক্তি আন্দোলনকে বেগবান করবেন।
বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বলেন, ভোটের দিন সকালে সকালে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ভোট কেন্দ্র পাহারা দিয়ে পাশাপাশি ভোটে বাধাদানকারী দুষ্কৃতিকারীদের প্রতিহত করে ভোটের অধিকার আদায় করে নিতে হবে।
তিনি বলেন, পিছিয়ে থাকা বাকলিয়াবাসীর নাগরিকমান উন্নয়নের জন্য ডা. শাহাদাতের বিকল্প হতে পারে না। সকলকে ২৯ তারিখ ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে ধানের শীষে ভোট দেয়ার আহবান জানান তিনি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, সি. সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান, উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম, ইদ্রিছ মিয়া চেয়ারম্যান, সহ-সভাপতি অধ্যাপক নূরুল আলম রাজু, যুগ্ম সম্পাদক কাজী বেলাল উদ্দীন, ইয়াসিন চৌধুরী লিটন, আনোয়ার হোসেন লিপু, গাজী সিরাজ উল্লাহ, ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী ইয়াসিন চৌধুরী আসু, ইসহাক চৌধুরী আলিম, ধর্ম সম্পাদক নুরুল আক্তার, প্রশিক্ষণ সম্পাদক এম আই চৌধুরী মামুন, গণশিক্ষা সম্পাদক ইব্রাহিম বাচ্চু, পরিবেশ সম্পাদক আমিন মাহমুদ, সহ সম্পাদক একে খান, মো শাহজাহান, অধ্যক্ষ খুরশেদ আলম, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক জেলী চৌধুরী, বাকলিয়া থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আফতাবুর রহমান শাহিন, মো. মহসিন, সাহেদা বেগম পারভীন, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি মো. সেকান্দার, সাধারণ সম্পাদক মো. হাজী এমরান, ইয়াকুব চৌধুরী নাজিম, নগর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক বাদশা, কাউন্সিলর প্রার্থী আরিফুল ইসলাম ডিউক, মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী শাহেনেওয়াজ চৌধুরী মিনু, মাহমুদা সুলতানা ঝর্ণা, নাছরিন আক্তার প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি