স্মরণসভায় বক্তারা

অখ্যাতজনকেও মূল্য দিতেন আবদুল্লাহ আল হারুন চৌধুরী

114

দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান বলেছেন, বাংলাদেশ ও আওয়ামী লীগে আবদুল্লাহ আল হারুন চৌধুরীর ভূমিকা অপরীসীম। তিনি তার মেধা দিয়ে দল ও দেশের জন্য কাজ করে গেছেন আজীবন। রাজনীতিতে এখন যে দুর্বৃত্তায়ন ঘটেছে তা থেকে যদি আমরা উত্তরণের পথ খুঁজি তাহলে এই প্রজন্মের কাছে আবদুল্লাহ আল হারুন চৌধুরীদের মতো রাজনীতিবিদের অবদান তুলে ধরতে হবে। তাদের জানাতে হবে, জনগণকে কিছু দেওয়ার জন্য রাজনীতি, কেড়ে নেওয়ার জন্য নয়। তিনি বলেন, আবদুল্লাহ আল হারুন চৌধুরী ছিলেন একজন প্রকৃত শিক্ষিত বিদগ্ধ রাজনীতিবিদ। সাধারণ মানুষের প্রতি তার শ্রদ্ধাবোধ ছিল, অত্যন্ত দীন-দরিদ্র এবং অখ্যাতজনকেও মূল্য দিতেন তিনি। তিনি শুধু দীর্ঘ দেহে নয় মনেও অসাধারণ ছিলেন। বিষাক্ত সমাজ জীবনের ছোবল বা লোভার্ত কালিমা তাকে স্পর্শ করতে পারেনি। মানুষ হিসেবে আবদুল্লাহ আল হারুন চৌধুরী গৌরবোজ্জ্বল অঙ্গীকার পালন করে গেছেন। লোভকে সম্বরণ করতে পেরেছিলেন তিনি। নানা সময়ে নানা দল থেকে সরকারি উচ্চ আসনের অনেক অফার পেয়েও তিনি তা নির্মোহ মানুষের মতো এড়িয়ে যেতে পেরেছেন। বৈভবহীন গৌরবের প্রতি তার এ আকর্ষণ আজকের সমাজে বিরল। তিনি বিভিন্ন সংগ্রামে সাধারণ মানুষের সাথে ছিলেন। তিনি নিজেকে বিতর্কের উর্দ্ধে রাখতে পেরেছিলেন।
গত ১২ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে মুজিবনগর সরকারের ১নং প্রশাসনিক কাউন্সিলের চেয়ারম্যান, সাবেক গণপরিষদ সদস্য, বঙ্গবন্ধু কর্তৃক নিযুক্ত চট্টগ্রাম জেলা বাকশালের সাধারণ সম্পাদক, বৃহত্তর চট্টগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক, ভাষা সৈনিক ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রাক্তন নেতা আবদুল্লাহ আল হারুন চৌধুরী’র ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভাপতির বক্তব্যে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও পটিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, আবদুল্লাহ আল হারুন চৌধুরী একজন দেশ দরদী রাজনীতিবিদ , দেশ ও জাতির জন্য তিনি আজীবন কাজ করেছেন। রাজনীতিতে সাধারণ নেতা-কর্মীদের সাথে তার সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। অনিয়ম, বিভেদ সৃষ্টি করার মতো রাজনীতি তিনি কখনো করেননি।
আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক এমপি চেমন আরা তৈয়ব, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রদীপ দাশ, দপ্তর সম্পাদক আবু জাফর, শিক্ষা সম্পাদক বোরহান উদ্দিন এমরান, কৃষি সম্পাদক এড. আবদুর রশিদ, চন্দনাইশ পৌরসভা মেয়র মাহবুবুল আলম খোকা, সদস্য চেয়ারম্যান নাছির আহমদ, মাহবুবুর রহমান শিবলী, দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও মরহুমের সন্তান শামীমা হারুন লুবনা, দক্ষিণ জেলা তাঁতী লীগ আহব্বায়ক দিদারুল আলম, যুগ্ম-আহব্বায়ক পরিমল দেব, মমতাজ উদ্দিন, খোরশেদ পাশা, দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী কল্পনা লালা, জীবন আরা বেগম, শাহীন আক্তার সানা, ফাহমিদা, ফৌজিয়া আক্তার, হাসিনা চৌধুরী, রুমা আকতার, রোকেয়া বেগম প্রমুখ। সভা শেষে আবদুল্লাহ আল হারুন চৌধুরীর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় খতমে কোরআন, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিল ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মৌলানা হাফেজ আরিফুর রহমান। বিজ্ঞপ্তি